অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস পার্লামেন্টে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশ চালানোর দক্ষতা নিয়ে তার প্রশংসা করা হয়েছে। যা কিনা বাংলাদেশিদের জন্য অত্যন্ত সুখকর বিষয়।

সম্প্রতি নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। প্রস্তাবটিতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকারের বিভিন্ন কাজের ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরা হয়েছে।

লেবার পার্টির লেজিসলেটিভ কাউন্সিলের সদস্য শওকত মুসেলমানি গত ১০ নভেম্বর ২০২২ স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় প্রস্তাবটি সংসদের উচ্চ কক্ষে আলোচনার জন্যে তুলে ধরেন। প্রস্তাবটিতে শেখ হাসিনা ও তার সরকারের সফলতার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। বিশেষ করে বাংলাদেশের পদ্মা সেতু, ভারতের সাথে পানি চুক্তি, পাহাড়ি এলাকার শান্তি চুক্তি এবং ৭২ বছরের অবহেলিত ছিটমহল বিনিময় চুক্তির মাধ্যমে কূটনৈতিক সফলতা অন্যতম।

শওকত মুসেলমানি বলেন, বিশ্বে নারী নেতৃত্বে শেখ হাসিনা সমাদৃত এবং তার অবদান অনস্বীকার্য। উল্লেখ্য, যে ভারতকে বাংলাদেশের সাথে ছিটমহল বিনিময় চুক্তি করার জন্য তাদের দেশের সংবিধান সংশোধন করতে হয়েছে।

সংসদীয় প্রস্তাবটিতে প্রবাসী বাংলাদেশি নেতা গামা আব্দুল কাদিরের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। গামা কাদির বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন সভাপতি। বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজের জন্য তিনি অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে অতি পরিচিত ও অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি নাম। বাংলাদেশ সরকারের ইতিবাচক দিকগুলো রাজ্য সংসদে প্রস্তাব আকারে আনার পেছনে তার অক্লান্ত পরিশ্রম কাজ করেছে।

অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিরা মনে করে অস্ট্রেলিয়ার মতো গণতান্ত্রিক একটি দেশে প্রধানমন্ত্রীর কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করে সংসদীয় প্রস্তাব অনুমোদিত হওয়াতে তাদের মুখ উজ্জ্বল হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী সমগ্র দেশের, শুধু আওয়ামী লীগের নয়, তাই বিদেশে একটি সংসদে এ ধরনের অনুমোদিত প্রস্তাব বাংলাদেশকেই সম্মানিত করেছে। অস্ট্রেলিয়ান সংসদে বাংলাদেশকে কোন সংসদীয় প্রস্তাব গত ৫০ বছরে এটাই প্রথম এবং অনুমোদিত।

Previous post মহিষের গুঁতোয় আহত সাবেক এমপি বদি
Next post কাতারে বাংলাদেশ ডে উৎসবে প্রবাসীদের মিলনমেলা
Close