বিএনপি নেতাদের প্রতি ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এইট পাস দিয়ে, মেট্রিক ফেল দিয়ে দেশ চললে উন্নয়ন হয় না।

তিনি বলেন, আমরা ক্ষমতায় আসার আগে সরকারে ছিল বিএনপি। ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার রিজার্ভ ছিল বিএনপির সময়। আমরা ৪৮ বিলিয়ন পর্যন্ত নিয়েছিলাম। কভিড টিকা কিনেছি, বিনিয়োগ করেছি, বিমান কিনেছি, পায়রা বন্দর নিজস্ব অর্থায়নে করেছি। এভাবে রিজার্ভ থেকে খরচ হয়েছে। ঘরের টাকা ঘরে থাকছে। দেশের জনগণের উন্নয়নে এই টাকা ব্যবহার করছি। আমাদের এই অগ্রযাত্রা কেউ রুখতে পারবে না।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যুবলীগের মহাসমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের নেতাই বিভিন্ন মামলার আসামি, তাদের মুখে আওয়ামী লীগের সমালোচনা শোভা পায় না।

অনেকে আমাদের সমালোচনা করছেন। তারা নাকি উন্নয়ন চোখেই দেখেন না- মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারা উন্নয়ন নাকি চোখেই দেখে না। এখন চোখ থাকতে যদি কেউ অন্ধ হয়, তাকে তো কিছু দেখানো যায় না। তারা তো ডিজিটাল বাংলাদেশ ব্যবহার করছে, মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে। সবই তো আওয়ামী লীগের দেওয়া।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, বিএনপির অনেক নেতা মানিলন্ডারিং, লুটপাট, দুর্নীতির কথা বলে। তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই এসে সাক্ষ্য দিয়ে গেছে। মানিলন্ডারিং মামলায় সে সাত বছরের সাজাপ্রাপ্ত। অস্ত্র মামলার আসামি। তাদের মুখে এই সমালোচনা মানায় না।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু যখন দেশ গড়ার কাজে হাত দেন, তখন এক টাকাও রিজার্ভ ছিল না। কিন্তু তিনি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যান। ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশকে আবার উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাই। বাংলাদেশকে এখন কেউ অবহেলার চোখে দেখে না।

গ্রামে ফিরে গিয়ে নিজ হাতে চাষাবাদ শুরু করতে যুবলীগ নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আমি যুবলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে বলব, যারা এখানে আছেন বা বাইরে আছেন, সবাই নিজের গ্রামে ফিরে যান, সেখানে গিয়ে কোনো জমিজমা অনাবাদী না রেখে, সেটা নিজের হাতে চাষ করতে হবে। কোথাও কোনো জমি যেন অনাবাদী না থাকে সেই ব্যবস্থা প্রতিটি যুবলীগ নেতাকর্মীর করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের পরনির্ভরশীল থাকলে চলবে না, আত্মনির্ভরশীল হতে হবে। তাই আমি আহ্বান করছি, এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদী না থাকে।

তিনি বলেন, আমি করোনার সময় আহ্বান করেছিলাম, কৃষক ধান কাটতে পারেনি, তারপর যুবলীগসহ সকল সহযোগী সংগঠন কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে। এরপর আমি আহ্বান করেছি, যুবলীগ বৃক্ষরোপণ করেছে। এভাবে মানুষের পাশে আমাদের এখনো দাঁড়াতে হবে।

বক্তব্যের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী যুবলীগকে সুবর্ণজয়ন্তীর শুভেচ্ছা জানান, যুবলীগের নেতাকর্মীদের অভিনন্দন জানান। এরপর তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা, জাতীয় চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুবলীগ আমাদের প্রতিটি আন্দোলনে অংশ নিয়েছে। জাতির পিতা যুবকদের দায়িত্ব দিতে যুবলীগ গঠন করেছিলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলব। আজও আমরা আধুনিক প্রযুক্তিতে প্রাথমিকের বাচ্চাদের শিক্ষা দিচ্ছি। আমরা বাংলাদেশে হাইটেক পার্ক সফটওয়্যার টেকনোলোজি পার্ক গড়ে তুলছি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের যুবকরা ট্রেনিং নিয়ে প্রযুক্তি ব্যবহার করে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর সুযোগ পাচ্ছে। এই সুযোগ আওয়ামী লীগ না এলে জীবনেও হতো না।

তরুণ সমাজের উদ্দেশে তিনি বলেন, তরুণ সমাজের দায়িত্ব দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। যুবলীগের প্রতিষ্ঠা হয়েছিল যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে গড়ে তোলার এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য।

এর আগে, দুপুর আড়াইটার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাবেশস্থলে আসেন। এরপর বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে এবং জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সমাবেশের উদ্বোধন করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

Previous post বিএনপি নেতারা ছাগলের বাচ্চার মতো লাফাচ্ছে : শেখ সেলিম
Next post বিএনপি বেশি ফাউল করছে, লাল কার্ড দেখাবে দেশবাসী: কাদের
Close