আইন জটিলতা পিছু ছাড়ছেই না সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। ইতোমধ্যে মার্কিন এক বিচারপতি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চলমান তদন্ত সংক্রান্ত আরও তথ্য প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন।

আমেরিকায় আসন্ন মধ্যবর্তী সংসদ নির্বাচনে বিরোধী রিপাবলিকান দল ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা কাজে লাগিয়ে সাফল্যের আশা করে আসছে। বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নানা কারণে অনেক মানুষকে হতাশ করায় সংসদের দুই কক্ষের নিয়ন্ত্রণ আবার নিজেদের হাতে তুলে নিতে চায় রক্ষণশীল এই দল। কিন্তু ট্রাম্পকে ঘিরে বর্তমান আইনি সংঘাত সেই স্বপ্নকে প্রশ্নের মুখে ফেলছে। এর মধ্যে ট্রাম্প ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলের প্রার্থী হবার ঘোষণা করলে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠতে পারে। শেষ পর্যন্ত ট্রাম্প রিপাবলিকান দলের জন্য দায় হয়ে দাঁড়ালে তাকে সহজে ঝেড়ে ফেলাও কঠিন।

গত ৮ই আগস্ট ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের মার-আ-লাগো এস্টেটে তল্লাশি চালিয়ে যেসব নথিপত্র উদ্ধার করা হয়েছে, সেগুলি যাতে প্রকাশ্যে না আসে তার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ট্রাম্প। কিন্তু এক বিচারপতি আইন মন্ত্রণালয়কে শুক্রবার দুপুরেই সেই এফিডেভিটের কাটছাঁট করা অংশ প্রকাশ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

ফেডারেল তদন্তকারীরাও চলমান তদন্তের স্বার্থে কিছু অংশ গোপন রাখতে আগ্রহী। বিচারপতির আদেশ কার্যকর হলে ট্রাম্পের এস্টেটে তল্লাশি চালানোর কারণ সম্পর্কে আরও কিছু খুঁটিনাটি বিষয় প্রকাশ্যে জানা যাবে। এখনো পর্যন্ত জানা গেছে যে এফবিআই তল্লাশি চালিয়ে মোট ১১টি গোপন সরকারি নথিপত্রের সেট উদ্ধার করেছে।

আদালতের আদেশে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তদন্ত সংক্রান্ত বাড়তি কিছু তথ্য প্রকাশ্যে এলে সাবেক প্রেসিডেন্ট আরও আইনি জটিলতার মুখে পড়তে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এফবিআই সন্দেহ করছে যে, ট্রাম্প তিনটি ফেডারেল আইন লঙ্ঘন করেছেন। গুপ্তচরবৃত্তি আইনের আওতায় প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য সংক্রান্ত অনিয়মও সেই তালিকায় রয়েছে। এছাড়া সরকারি রেকর্ড ধ্বংস বা কারচুপির সন্দেহও করা হচ্ছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বৃহস্পতিবার ট্রাম্পের প্রতি আনুগত্যের কারণে রিপাবলিকান দলের কড়া সমালোচনা করেছেন। আগামী নভেম্বরের মিড টার্ম নির্বাচন উপলক্ষ্যে ডেমোক্র্যাটিক দলের এক রাজনৈতিক সভায় তিনি বিরোধী দলের বিরুদ্ধে হিংসা ও ঘৃণা আঁকড়ে ধরার অভিযোগ করেন। তার মতে, রিপাব্লিকান দল ‘আংশিক ফ্যাসিবাদ’-এর দিকে এগোচ্ছে।

তিনি নির্দল রিপাবলিকান ভোটারদের উদ্দেশ্যে সহায়তার জন্য আবেদন করেন। বাইডেন বলেন, আবার গণতন্ত্র রক্ষা করতে তাঁদের ভোট দিতে হবে। অ্যামেরিকা অগ্রসর হবে, না পিছিয়ে যাবে, সেই সিদ্ধান্ত নেবার সময় এসেছে বলে তিনি দাবি করেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতে, ট্রাম্পকে ঘিরে রিপাব্লিকান দলের উগ্র জাতীয়তাবাদী শিবির ক্রোধ, হিংসা, ঘৃণা ও বিভাজনের রাজনীতির পথ বেছে নিয়েছেন। তারা জনগণের ইচ্ছার তোয়াক্কা করেন না। এমন শক্তির মোকাবিলা করতে বাইডেন ডেমোক্র্যাট, নির্দল এবং মূল স্রোতের রিপাবলিকান সমর্থকদের ঐক্যের ডাক দিয়েছেন।

Previous post মুক্তির পর বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান সম্রাট
Next post টিকার ফর্মুলা চুরির অভিযোগে ফাইজারের বিরুদ্ধে মডার্নার মামলা
Close