বন্ধু’ হল আমাদের জীবনে সেই বিশেষ মানুষ, যাকে চোখ বুজে বিশ্বাস করা যায়, বিপদে পড়লে যার কাছ থেকে সাহায্য পাওয়ার আশা করা যায়। ‘বন্ধু’ শব্দটি ছোট কিন্তু এর গভীরতা অনেক।

বন্ধুরা একটা সময়ে নিজেদের মধ্যে কার্ড, ফুল, উপহার বিনিময় করতো। পরবর্তীতে রাষ্ট্রীয়ভাবে বন্ধু দিবস পালন করা শুরু হলো ৩০শে জুলাই। তবে কিছু কিছু দেশে অন্য তারিখেও পালন করা হয়ে থাকে। এই বন্ধুত্বের জন্য আলাদা একদিন হয় না। বন্ধুদের দিন বছরের সব দিনগুলো। তাও একটি বিশেষ দিন রয়েছে বন্ধুত্ব পালনের জন্য। তাহলো ফেন্ডশিপ ডে।

নবধারা এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আবুল কালাম আজাদ খোকন সিডনির রাসেস রেষ্টুরেন্টে ‘বন্ধু দিবস’ উদযাপন করেন। সংগঠনের সকল সদস্যরা তাদের জীবনের বন্ধুত্বের গল্প শেয়ার করেন এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। তাতে বিভিন্ন রকমের গল্প ও অভিজ্ঞতা বের হয়ে আসে। কখনও কোনো বিপদের সময় হোক কিংবা আনন্দের সময় কিংবা কোনো সিদ্ধান্ত নিতে সকলেই একজন বন্ধুকে খোঁজেন।

বন্ধুত্ব দিবসে সকল বন্ধুদেরকে শুভেচ্ছা জানাতে কেক কাটা হয়। ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও ডিনারের পর অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।

Previous post প্রবাসীদের সমস্যা নিয়ে হাইকমিশনারের সাথে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়
Next post জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে শহিদ শেখ কামালের ৭৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন
Close