বাংলাদেশ জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বলেছেন, “বাংলাদেশ এগিয়ে যাওয়ার পেছনে রয়েছে প্রবাসী বাংলাদেশিদের গুরুত্বপূর্ণ অবদান। প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের উপর আস্থা রেখেই বাংলাদেশ সরকার পদ্মা সেতুর মতো বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।”

তিনি বলেন, “প্রবাসীদের জন্যও সরকারের রয়েছে নানামুখী সেবা, সেই সেবার মান আরও বাড়াতে হবে। সেই সাথে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বিভিন্ন ধরনের যে মৌলিক সমস্যাগুলো রয়েছে সেগুলোর বিষয়েও সরকারের আরও কাজ করার সুযোগ রয়েছে। প্রবাসীরা যেন বাংলাদেশে গিয়ে কোনও হয়রানির শিকার না হয়। কারণ প্রবাসীরা হচ্ছে আমাদের ‘রিয়েল হিরো’।”

ফরিদা ইয়াসমিন ২৪ জুলাই ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের লাকর্নভে ‘ইউরো বাংলা প্রেসক্লাবের প্রবাসীদের প্রত্যাশা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
ইউরো বাংলা প্রেসক্লাবের ফ্রান্স ইউনিটের সহ-সভাপতি এম আলী চৌধুরীর পরিচালনায় সভাপতি তাইজুল ইসলামের সভাপতিত্বে এই আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রবাসীদের জন্য স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ২৫টি দাবি উত্থাপন করা হয়।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কমনওয়েলথ জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি সৈয়দ নাহাস পাশা, বাংলাদেশ বিজনেস কনসাল্টিং ফ্রান্সের সেক্রেটারি কাজী এনায়েত উল্লাহ, লেখক ও কলামিস্ট ডা. জিন্নুরাইন জায়গীরদার, বাংলাদেশ প্রতিদিনের ইউরোপ ব্যুরো চিফ আ স ম মাসুম, বাংলাদেশ কমিউনিটি অ্যাসোসিয়েশন তুলুজের প্রেসিডেন্ট ফকরুল আকম সেলিম, ব্রিটেনস্থ গ্রেটার সিলেট অ্যাসোসিয়েশন নর্থ রিজিওনের সভাপতি হাজী ফয়জুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের জয়েন্ট ইউরোপ ব্যুরো চিফ আফজাল হোসেন, চ্যানেল এস লন্ডনের সিনিয়র সাংবাদিক নূরে আলম রব্বানী, লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ, ফ্রান্স শাহ গ্রুপ চেয়ারম্যান সাত্তার আলী সুমন, অস্ট্রিয়া প্রবাসী সাংবাদিক মাইদুল মিয়া, প্যারিস বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভাপতি এনায়েত সোহেল, ইউরো বাংলা প্রেসক্লাবের ফ্রান্স ইউনিট সভাপতি তাজ উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল আহমেদসহ আরও অনেকে।

প্রবাসীদের নিয়ে বিভিন্ন সেক্টরে কাজ করার জন্য সাংবাদিকতা ও কারি শিল্পে বিশেষ অবদান রাখার জন্য সৈয়দ নাহাস পাশা, সাংবাদিকতা ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চ্যারিটি কাজের জন্য ইস্টহ্যান্ডস চ্যারিটির চেয়ারম্যান নবাব উদ্দিন, ফ্রান্সের তুলুজে প্রথম বাংলাদেশের শহীদ মিনার স্থাপনের জন্য ফকরুল আকম সেলিমকে প্রবাসবন্ধু ২০২২ পদকে ভূষিত করা হয়। এছাড়াও ফরিদা ইয়াসমিনকে ইউরো বাংলা প্রেসক্লাবের বিশেষ সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়।