বিশ্ববরেণ্য চিত্রশিল্পী এস. এম সুলতান স্মরণে নেপালের কাঠমান্ডুতে তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক চিত্র প্রদর্শন চলছে। গত ১৫ জুলাই থেকে শুরু হওয়া এই প্রদর্শনীর আজ শেষ দিন।

কাঠমান্ডুর মিথিলা ইয়ান আর্ট গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন নেপালের সাবেক ডেপুটি প্রধান মন্ত্রী সুজতা কৈরালা। নেপালের বাংলাদেশি হাইকমিশনার সালাউদ্দিন নোমান চৌধুরী, নেপালের বিখ্যাত চিত্রশিল্পী গেহেন্দ্রমান আমাতইয়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

প্রদর্শনীতে ১৩টি দেশের ৬৯ জন চিত্রশিল্পী অংশ নিয়েছেন। এদের মধ্য থেকে বেস্ট অ্যাওয়ার্ড অর্জন করেছেন বাংলাদেশের ৬ শিল্পী। তারা হলেন চিত্রশিল্পী নাজমুন নাহার রহমান, সিগমা হক অংকন, মাহফুজা বেগম, ফাহমিদা খাতুন, গোবিন্দ রায় ও বেবি সুলতানা।

প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের ৩৫ জন, ভারতের ১৯ জন, মালয়েশিয়ার ১ জন, নেপালের ২ জন, থাইল্যান্ডের ১ জন, জার্মানির ১ জন, জিম্বাবুয়ের ১ জন, যুক্তরাষ্ট্রের ১ জন, বুলগেরিয়ার ১ জন, রাশিয়ার ১ জন, তুরস্কের ১ জন এবং শ্রীলংকার ১ জন চিত্রশিল্পী অংশ নিয়েছেন।

বাংলাদেশ থেকে নেপালে গিয়ে এতে অংশ নিয়েছেন চিত্রশিল্পী নাজমুন নাহার রহমান, চিত্রশিল্পী সিগমাহক, চিত্রশিল্পী ফারজানা বেগম তনু, চিত্রশিল্পী আনান করিম এবং সূচী শিল্পী মো. আমিনুল ইসলাম।

এস.এম সুলতান শিল্পী ফ্যান আর্টিস্ট গ্রুপের উপদেষ্টা মলয় কুমার কুন্ডু অংশগ্রহণকারী শিল্পীদের কাঠমান্ডুতে অভিবাদন জানান।

এ বিষয়ে আর্ট গ্রুপের পরিচালক চিত্রশিল্পী সমীর কুমার বৈরাগী জানান, এস.এম সুলতান বাংলাদেশে জন্ম নিলেও তার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। এ কারণে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের শিল্পীরা এ প্রদর্শনীতে ব্যাপক আগ্রহ নিয়ে অংশ নিয়েছেন। এ বছর নেপালে অনুষ্ঠিত প্রদর্শনীর নামকরণ হয়েছে ‘ইন্টার ন্যাশনাল আর্ট এক্সিভিশন মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড ফেমাস আর্টিস্ট এস.এম সুলতান’।

তিনি আরও জানান, প্রদর্শনীকে সার্থক করতে সহযোগী হিসেবে কাজ করছে নড়াইলের পৌর মেয়র আঞ্জুমান আরা, জি.কে ক্সকরাল ফাউন্ডেশন নেপাল এবং চারুকানন নড়াইল। প্রদর্শনীর সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন চিত্রশিল্পী তন্দা মুখার্জী।

Previous post সার্বিয়া থেকে বাংলাদেশে আসার সময় কার্গো বিমান বিধ্বস্ত: নজর রাখছে এথেন্সের বাংলাদেশ দূতাবাস
Next post বিশ্বে দুর্বল পাসপোর্টের তালিকায় নবম বাংলাদেশ
Close