গর্ভপাত করাতে এক রাজ্য থেকে আরেক রাজ্যে যাওয়া নারীদের ফেডারেল সরকারের পক্ষ থেকে সুরক্ষা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তার আশঙ্কা, যেসব রাজ্য গর্ভপাত নিষিদ্ধ করবে সেখানকার নারীরা গর্ভপাত করাতে অন্য রাজ্যে যেতে চাইলে তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হতে পারে।

গত ২৪ জুন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট দেশব্যাপী গর্ভপাতকে বৈধতা দেওয়া প্রায় ৫০ বছরের পুরোনো একটি আইনি সিদ্ধান্ত উল্টে দিয়ে নারীদের গর্ভপাতের অধিকার কেড়ে নেয়। ১৯৭৩ সালের ওই আইনি সিদ্ধান্তটি ‘রো বনাম ওয়েড’ সিদ্ধান্ত নামে পরিচিত।

২৪ জুনের ওই রায়ের ফলে যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যগুলো এখন নিজস্বভাবে গর্ভপাত নিষেদ্ধের পক্ষে বা বিপক্ষে আইন জারি করতে পারবে।

বিবিসির ধারণা, দেশটির অর্ধেক অঙ্গরাজ্যই গর্ভপাত নিষিদ্ধের পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

এরইমধ্যে রক্ষণশীল দল রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন ১৩টি রাজ্যে গর্ভপাত নিষিদ্ধ অথবা এর উপর কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

ফলে ওই সব রাজ্যের নারীদের গর্ভপাত করাতে হলে গর্ভপাত বৈধ এমন কোনো রাজ্যে যেতে হবে।

শুক্রবার বাইডেন বলেন, ‘‘আমার মনে হয় লোকজন খুবই হতবাক হবে যখন দেখবে প্রথম কোনো রাজ্য একজন নারীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করবে যিনি স্বাস্থ্য সেবা পেতে অন্য কোনো রাজ্যে যেতে চাইছেন।

‘‘এরকম কিছু ঘটতে পারে এমনটা মানুষ এখনো বিশ্বাস করে বলে আমার মনে হয় না। কিন্তু এমনটা ঘটবে এবং পুরো দেশে এমন একটি চিত্র ছড়িয়ে পড়বে যেন এটা একটি বিশাল বড় আইন যা সব কিছুকে ছাপিয়ে যাবে। আমি বলতে চাইছি, এটা আপনাদের সব মৌলিক অধিকারে প্রভাব ফেলবে।”

ডেমোক্রেটিক নিয়ন্ত্রিত রাজ্যের গভর্নরদের সঙ্গে এক ভার্চুয়াল বৈঠকে বাইডেন আরো বলেন, গর্ভপাত করাতে যেসব নারীদের নিজ রাজ্য ছেড়ে অন্য কোথাও যেতে হবে তাদের জন্য ফেডারেল সরকার থেকে সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হবে।”

একই সঙ্গে তিনি যেসব রাজ্যে গর্ভপাত নিষিদ্ধ সেখানে যেন নারীরা এ সংক্রান্ত জটিলতার কারণে প্রয়োজনীয় ওষুধ পেতে পারেন সে ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন বলে জানায় বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বৈঠকে নিউ মেক্সিকোর গভর্নর মিশেল লুজান গ্রিশাম বলেন, যেসব নারী গর্ভপাত করেছেন তাদের খুঁজে বের করে শাস্তি দিতে যদি কোনো উদ্যোগ নেয়া হয় তবে তার ‘রাজ্য থেকে সে কাজে কোনো ধরনের সহযোগিতা করা হবে না’।

নারীদের গর্ভপাতের অধিকারের পক্ষে যারা কাজ করেন এমন কয়েকটি সংগঠন থেকে কয়েকটি রাজ্যে গর্ভপাত নিষিদ্ধের বিরুদ্ধে আদলতের দ্বারস্ত হয়েছে।

রয়টার্স জানায়, ফ্লোরিডা, লুইজিয়ানা, টেক্সাস এবং উটাহ রাজ্যের বিচারকরা তাদের রাজ্যে গর্ভপাতের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে বাধা দেওয়ার পক্ষে সিদ্ধান্ত জারি করেছেন।

তবে ওহিও রাজ্যের শীর্ষ আদালত রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন রাজ্যটিতে গর্ভপাতের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপে বাধা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন।

বাইডেনের সঙ্গে বৈঠকে নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হকুল বলেন, ‘‘মাত্র হাতেগোণা কয়েকটি রাজ্যকে সারা দেশের নারীদের স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে হবে।

‘‘সেখানে অনেক মানসিক চাপ রয়েছে। এটা আমেরিকার নারীদের জন্য জীবন-মরণের বিষয়।”

গুগল থেকেও যুক্তরাষ্ট্রের নারীদের পক্ষে অবস্থান নেওয়া হয়েছে। গুগল বলেছে, তারা তাদের সার্ভার থেকে গ্রাহকদের ‘লোকেশন হিস্ট্রি’ (কোথায় কোথায় গিয়েছেন) মুছে ফেলবে। যাতে ওই তথ্য ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রের গর্ভপাত ক্লিনিকগুলোতে যাওয়া কাউকে বিচারের আওতায় আনা না যায়।

 

Previous post যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে সুখী মানুষ দাবী করা ‘মিডিয়া মুঘল’র চতুর্থ স্ত্রীর বিচ্ছেদের আবেদন
Next post লস ভেগাসে ৪২তম বঙ্গ সম্মেলন: উপেক্ষিত বাংলাদেশ
Close