বর্ণিল উত্সবে খুলে গেল পদ্মা সেতুর দুয়ার। মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মার তীরে উন্মোচিত হলো ফলক, বাতাসে উড়ল রঙিন আবির, স্বপ্নের বিজয়োত্সবে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল শনিবার বেলা ১১টা ৫৮ মিনিটে তিনি পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচন করে স্বপ্নের দুয়ার খুলে দেন এবং বক্তব্য প্রদান করেন। আর এর মধ্য দিয়ে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার সঙ্গে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হলো। প্রধানমন্ত্রী পরে সেতুর জাজিরা প্রান্তে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ীতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম পদ্মা সেতুর নির্মাণ বিষয়ক সূচনা বক্তৃতা করেন। তিনি প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম, উপ-পরিচালক কামরুজ্জামান, প্রজেক্ট ম্যানেজার অ্যান্ড সুপারভিশন কনসালট্যান্ট রবার্ট জন এভিসসহ প্রকল্প বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ কয়েক জনকে অনুষ্ঠানে পরিচয় করিয়ে দেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে শিল্পকলা একাডেমি নির্মিত দেশের বরেণ্য শিল্পীদের অংশগ্রহণে থিম সং- ‘বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন দেশ, তুমি দিলে পদ্মা সেতু, পৃথিবী তাকিয়ে রয়, মাথা নোয়াবার নয়’ পরিবেশিত হয়। পদ্মা সেতুর ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শিত হয়। প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে স্মারক ডাক টিকিট, সুভ্যেনির শিট, উদ্বোধনী খাম ও সিলমোহর এবং ১০০ টাকা মূল্যের স্মারক নোট অবমুক্ত করেন।

এসময় পদ্মা সেতুর নির্মাণকারী কোম্পানির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে পদ্মা সেতুর একটি রেপ্লিকা উপহার দেওয়া হয়। নির্মাণ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে ফটোসেশনেও অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এরপরই প্রধানমন্ত্রী প্রথম ব্যক্তি হিসেবে টোল দিয়ে সেতুর মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-১ উন্মোচন করেন এবং মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রীর কন্যা এবং বাংলাদেশের অটিজম আন্দোলনের পথিকৃৎ সায়মা ওয়াজেদ পুতুল এসময় সঙ্গে ছিলেন।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্য, ১৪ দলের কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃবৃন্দ, মন্ত্রিসভার সদস্যবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, তিন বাহিনী প্রধানগণ, কূটনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। বিএনপি নেতৃবৃন্দ, নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ আরো কয়েক জন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও তারা অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত ছিলেন। এর আগে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় সমাবেশস্থলে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশে বক্তব্য দিয়ে সেতুতে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুর মাঝামাঝি অংশে গাড়ি থামিয়ে নেমে সেতু ঘুরে দেখেন ও ফ্লাইং ডিসপ্লে উপভোগ করেন। এসময় সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে লাল-সবুজের মাস্ক পরিহিত প্রধানমন্ত্রীকে বেশ প্রাণবন্ত দেখাচ্ছিল। এরপর দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে জাজিরা প্রান্তে সেতুর উদ্বোধনী ফলক ও ম্যুরাল-২-এর উন্মোচন করে মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সাবেক মন্ত্রিপরষদ সচিব মোশাররফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দুপুর ১২টা ৫১ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী কাঁঠালবাড়ীতে জনসভাস্থলে এসে পৌঁছান। এ সময় লাখো নেতাকর্মী করতালি ও স্লোগান দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন জানান।

Previous post অবশেষে যুগান্তকারী আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিলে বাইডেনের স্বাক্ষর
Next post জাপানে ৩ ঘণ্টা বাতি বন্ধ রাখার নির্দেশ
Close