শ্রমিক পাঠানোর সব প্রটোকল মানার আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিক পাঠানোর বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এ আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার সরকারি বাসভবন গণভবনে গেলে তিনি এ আশ্বাস দেন। এ সময় শেখ হাসিনা দুই দেশের মধ্যে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে স্বাক্ষরিত শ্রমিকদের কর্মসংস্থান সংক্রান্ত এমওইউ-এর প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।

মালয়েশিয়া সরকারের অসামরিক ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশি নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

মালয়েশিয়ার মন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তাদের মানবসম্পদ মন্ত্রণালয়ের পুনর্গঠন ও আইএলও নির্দেশিকা অনুসরণ করে অভ্যন্তরীণ কর্মসংস্থান প্রক্রিয়া সুগম করার বিষয়ে অবহিত করেন।

তিনি বলেন, আমরা অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য পাঁচ বছরের কর্মপরিকল্পনা নিয়েছি। এই লক্ষ্যে তারা এরই মধ্যেই ন্যূনতম মজুরি ৩০ হাজার ৪০০ টাকায় উন্নীত করেছি।

মালয়েশিয়া শুধু চাকরি প্রার্থীদের কাছ থেকে অনলাইনে আবেদন গ্রহণ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারা নিয়োগকারী সংস্থাকে মাঝখানে না রেখেই নিয়োগকর্তাদের কাছ থেকে কর্মীদের বেতন কার্ড অ্যাকাউন্টে সরাসরি ই-পেমেন্ট ইনস্টল করেছেন।

এ সময় তিনি মানব পাচারের সম্ভাবনা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেন বাংলাদেশের সরকার প্রধানের কাছে।