জমকালো আয়োজনের মধ্যে দিয়ে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হবে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। দেশের সব জেলা থেকে একযোগে আয়োজিত হবে জমকালো সেই অনুষ্ঠান।

সোমবার (৩০ মে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা জানান।

বৈঠকে আলোচ্যসূচির বাইরে আলোচনার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘পদ্মা সেতুর উদ্বোধন আপনারাই বলেন, যে ম্রিয়মান হওয়া উচিত? নাকি গর্জিয়াস হওয়া উচিত?’ জবাবে সাংবাদিকরা বলেন, ‘গর্জিয়াস।’ মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, তাহলে ইনশাআল্লাহ সুপার গর্জিয়াস। যেটা হবে সেটা তো মাননীয় (প্রধানমন্ত্রী) বলবেন।

এসময় আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ওইদিন ৬৪ জেলায় একসঙ্গে রেপ্লিকেশন হবে। এখানে অরিজিনাল উদ্বোধন, সব জায়গায় রেপ্লিকেশন হবে। আগামী ২৫ জুন সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন। আর এ সেতুর নাম পদ্মা নদীর নামেই হবে বলে এরই মধ্যে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

পদ্মা নদীর বুকে নিজস্ব অর্থায়নে ৩০ হাজার কোটি টাকায় ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সেতুর কাজ ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে উদ্বোধন হয়। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে বসে প্রথম স্প্যান। মাঝে ২২টি খুঁটির নিচে নরম মাটি পাওয়া গেলে নকশা সংশোধনের প্রয়োজন হয়। তাতে বাড়তি সময় লেগে যায় প্রায় এক বছর। করোনাভাইরাস মহামারী আর বন্যার মধ্যে কাজের গতি কমে যায়। সব বাধা পেরিয়ে অক্টোবরে বসানো হয় ৩২তম স্প্যান। এরপর বাকি স্প্যানগুলো বসানো হয়ে যায় অল্প সময়ের মধ্যেই। ঠিক পাঁচ বছরের মাথায় পূর্ণ আকৃতি পায় স্বপ্নের সেতু, যুক্ত হয় পদ্মার দুই পাড়।

Previous post গায়ের কাপড় বেচে হলেও সস্তায় আটা দেবো: পাক প্রধানমন্ত্রী
Next post ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপি’র উদ্যোগে জিয়াউর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী পালিত
Close