মার্কিন কংগ্রেস ‘বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০তম বার্ষিকী’ উপলক্ষে ৩ মে একটি দ্বিদলীয় প্রস্তাব উত্থাপন করেছে।

নিউইয়র্কের ডেমোক্র্যাটিক কংগ্রেসম্যান ব্রায়ান হিগিন্স কংগ্রেসে প্রস্তাবটি উপস্থাপন করেন, যা আমেরিকান সামোয়ার রিপাবলিকান কংগ্রেসওম্যান আমাটা কোলম্যান রাদেওয়াগেন কো-স্পন্সর করেছেন। প্রস্তাবটি পররাষ্ট্র বিষয়ক হাউজ কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে বলে ৫ মে প্রাপ্ত সংবাদে জানা গেছে।

প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশ একটি অবাধ, উন্মুক্ত, অন্তর্ভুক্তিমূলক, শান্তিপূর্ণ ও নিরাপদ ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের শেয়ার্ড ভিশনকে এগিয়ে নিতে অর্থনৈতিক, নিরাপত্তা, শাসন এবং উন্নয়নসহ বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে একটি সমৃদ্ধ এবং বহুমুখী সম্পর্ক বজায় রাখছে।’
প্রস্তাবে ৪ এপ্রিল, ১৯৭২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি এবং পরবর্তীকালে ৯ এপ্রিল, ১৯৭২ সালে প্রেসিডেন্ট নিক্সনের কাছে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক এ ব্যাপারে প্রেরিত চিঠির কথা উল্লেখ করা হয়।

এই প্রস্তাবে কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ প্রচেষ্টার পাশাপাশি মিয়ানমারে গণহত্যা থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সহায়তার জন্য দুই দেশের অবদানকেও স্বীকৃতি দিয়েছে।

কংগ্রেসের প্রস্তাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সমর্থনে ১৯৭১ সালে সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডির ভূমিকা এবং ২০০০ সালে প্রথম মার্কিন রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের বাংলাদেশ সফরের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

এটি বাংলাদেশে জলবায়ু সহায়তায় অবদান রাখার জন্য ২০২১ সালে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতিশ্রুতিও উল্লেখ করেছে। ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাস বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৫০তম বার্ষিকী উপলক্ষে মার্কিন কংগ্রেসের এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে বলে দূতাবাসের মিনিস্টার (প্রেস) এ জেড এম সাজ্জাদ হোসেন জানিয়েছেন।

Previous post প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেস সচিব পেল হোয়াইট হাউস
Next post কয়েকশো হাসপাতাল ধ্বংস করেছে রাশিয়া: জেলেনস্কি
Close