ইউক্রেনে আগ্রাসনের জেরে কয়েকশো হাসপাতাল ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করেছে রাশিয়া। এমন অভিযোগ করেছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তার দাবি, এই ধ্বংসযজ্ঞের কারণে ক্যান্সার মোকাবিলা করার মতো ওষুধ নেই এমনকি অস্ত্রোপচারও করতে পারছেন না চিকিৎসকরা। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে এনডিটিভি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (৫ মে) দেওয়া এক ভিডিওবার্তায় প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি একথা বলেন। এদিন মেডিকেল দাতব্য গোষ্ঠীর উদ্দেশে ভাষণে তিনি বলেন, ইউক্রেনের দক্ষিণ ও পূর্বাঞ্চলীয় অনেক জায়গায় চিকিৎসা সামগ্রীর সংকট রয়েছে। এমনকি অনেক জায়গায় মৌলিক অ্যান্টিবায়োটিকেরও অভাব রয়েছে।

ইউক্রেনেীয় প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আপনারা যদি কেবল চিকিৎসা অবকাঠামোর কথা চিন্তা করেন, তাহলে দেখবেন আগ্রাসন শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর সদস্যরা প্রায় ৪০০টি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস বা ক্ষতিগ্রস্থ করেছে। এর মধ্যে হাসপাতাল, প্রসূতি ওয়ার্ড, বহিরাগত (আউট পেশেন্ট) ক্লিনিকও রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘রুশ বাহিনীর দখলকৃত এলাকায় পরিস্থিতি নাজুক। ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধের পুরোপুরি অভাব রয়েছে। এর মানে চরম অসুবিধা বা ডায়াবেটিসের জন্য ইনসুলিনের সম্পূর্ণ অভাব। রোগীদের অস্ত্রোপচার করা এখন অসম্ভব। এমনকি অ্যান্টিবায়োটিকেরও অভাব দেখা দিয়েছে।’

রাশিয়া অবশ্য এ ধরনের অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করেছে। রুশ প্রেসিডেন্ট কার্যালয় ক্রেমলিনের দাবি, রুশ সেনারা কেবল ইউক্রেনের সামরিক ও কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা লক্ষ্য করেই হামলা করছে।