করোনা মহামারিতে বিশ্বে প্রায় এক কোটি ৫০ লাখ মানুষ মারা গেছে। দুই বছরে স্বাভাবিকভাবে বিশ্বে যত সংখ্যক মানুষ মারা যেতো এই সংখ্যা তার চেয়ে ১৩ শতাংশ বেশি। বৃহস্পতিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে।

সংস্থাটি জানিয়েছে, তাদের বিশ্বাস অনেক দেশ করোনায় মৃতের সংখ্যা কম দেখিয়েছে। ওই দেশগুলোর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫৪ লাখ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে, ভারতে করোনায় মারা গেছে ৪৭ লাখ মানুষ। দেশটির সরকারিভাবে প্রকাশিত সংখ্যার চেয়ে এই সংখ্যা ১০ গুণ বেশি। তাই স্বাভাবিকভাবেই ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এই প্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার যে পরিমাপ পদ্ধতি ব্যবহার করেছে তাকে অতিরিক্ত মৃত্যু গণণা বলা হচ্ছে। অর্থাৎ মহামারি আঘাত হানার আগে একই এলাকায় মৃত্যুহারের ওপর ভিত্তি করে প্রত্যাশিত তুলনায় কত বেশি লোক মারা গিয়েছিল সেই সংখ্যা। এতে করোনার প্রত্যক্ষ প্রভাবে যারা মারা গেছে তাদেরকেও অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। যেমন- করোনায় আক্রান্তের পর চিকিৎসা সেবা না পাওয়ায় যারা মারা গেছেন তাদেরকেও এই তালিকায় রাখা হয়েছে।

কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ৫৪ লাখের অতিরিক্ত যে ৯৫ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে তাদের অধিকাংশই পরোক্ষ কারণে নয়, বরং করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে মারা গেছেন।

পরিসংখ্যানের মাত্রা সম্পর্কে সংস্থার তথ্য-উপাত্ত বিভাগের ডা. সামিরা আসমা বলেছেন, ‘এটি একটি দুঃখজনক ঘটনা। এটি একটি বিস্ময়কর সংখ্যা এবং যেসব জীবন হারিয়ে গেছে তাদের সম্মান করা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এবং এর জন্য আমাদের নীতিনির্ধারকদের জবাবদিহিতার মুখোমুখি করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘যদি আমরা মৃতদের গণনা না করি তবে আমরা পরবর্তী সময়ের জন্য আরও ভালভাবে প্রস্তুত হওয়ার সুযোগ হারাব।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান অনুসারে, ভারতের পাশাপাশি, রাশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল, মেক্সিকো ও পেরু করোনায় মৃতের সংখ্যা কমিয়ে প্রকাশ করেছে।

Previous post হোয়াইট হাউজে ঈদ উৎসব
Next post চলতি অর্থবছরে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছে এপ্রিলে
Close