সদ্য প্রয়াত ভাষা সংগ্রামী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মাল আবদুল মুহিত স্মরণ ও শ্রদ্ধাঞ্জলি সমাবেশে বক্তব্যকালে নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুক্তরাষ্ট্র শাখার সেক্রেটারি আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, তিনি ছিলেন বাংলাদেশের ইতিহাসের অংশ। দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক ফোরামে বাংলাদেশের সম্পৃক্ত ও সমৃদ্ধিতে তিনি এক রূপান্তরের নায়ক। ইতিহাস-ঐতিহ্য সচেতন আলোকিত গুণীজন একজন ন্যায়নিষ্ঠ, সজ্জন চিৎপ্রকর্ষবিদ ছিলেন আবুল মাল আব্দুল মুহিত। সরলতা, সততা ও সত্য-কথনে এক জীবন্ত কিংবদন্তির নাম আবুল মাল আব্দুল মুহিত। তাঁর মৃত্যুতে গোটা বাঙালি জাতির অপূরণীয় ক্ষতি হলো।

সাবেক এই অর্থমন্ত্রীর মৃত্যু সংবাদ আসার পরই নিউইয়র্ক সিটির ব্রুকলীনে রাধুনী রেস্টুরেন্টে মহানগর আওয়ামী লীগের এই শোক সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লুৎফুল করিম।

তিনিও গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, মুহিত ছিলেন দেশাত্মবোধে উজ্জীবিত বাঙালির অনন্য প্রতিক। অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণকালে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা-সদস্য হাজী শফিকুল আলম বলেন, মুহিত শুধু স্বার্থক অর্থমন্ত্রীই ছিলেন না, বাংলাদেশের বর্তমান উন্নয়ন-অভিযাত্রারও প্রাণ পুরুষ ছিলেন।
ইফতারের পূর্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে অতিথি হিসেবে আরো মঞ্চে উপবেশন করেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু পরিষদের অন্যতম যুগ্ম সম্পাদক রেফায়েত চৌধুরী, সন্দ্বীপ পৌরসভা কল্যাণ সমিতির প্রেসিডেন্ট হাজী জাফরউল্লাহ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ফিরোজ পাটোয়ারি এবং আবুল বাশার ভূইয়া সন্দ্বীপী, নাজিম উদ্দিন, নজরুল ইসলাম, মাস্টার ইলিয়াস খান প্রমুখ।
উল্লেখ্য, ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল প্রলংকরী ঘূর্ণিঝড়ে সন্দ্বীপের বহু মানুষ প্রাণ হারায়। নিদারুণ সেই দুর্যোগে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি সহানুভ’তি জানিয়েও কয়েকজন বক্তব্য রাখেন।

এরপর আবুল মাল মুহিতের আত্মার মাগফেরাত কামনায় ব্রুকলীন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল জলিলের নেতৃত্বে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠান যৌথভাবে সঞ্চালনা করেন মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সুব্রত তালুকদার এবং ম্যানহাটান বরো আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি আবুল কাশেম। বিপুলসংখ্যক প্রবাসীর সমাগম ঘটেছিল এ অনুষ্ঠানে।

এদিকে, বর্ষিয়ান এ রাজনীতিকের মৃত্যুতে গভীর শোক এবং তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনসুর খন্দকার এবং কমিউনিকেশন ডাইরেক্টর বীর মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার। বিবৃতিতে তারা শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা জ্ঞাপন করেছেন।