আমরা শক্তিশালী বিরোধী দল পাচ্ছি না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (১১ এপ্রিল) নিজ কার্যালয়ের (পিএমও) কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অপজিশন (বিরোধী দল) বলতে যারা আছে, তার মধ্যে দুটি দলই (বিএনপি ও জাতীয় পার্টি) অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিল যারা, তাদের হাতে গড়া। তাদের সঙ্গে মাটি ও মানুষের সম্পর্ক নেই। ক্ষমতা তাদের কাছে ভোগের জায়গা। তাহলে অপজিশন আসলে কোথায়?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্রের জন্য অনেক দল দরকার। কিন্তু এখন উন্নত বিশ্বে দেখা যায় দুই দল হয়ে গেছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দুই দলের বেশি শক্তিশালী দল নেই। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ২৫ শতাংশ সংগঠন নির্বাচন করে না। একটা অনীহা রয়েছে। আমাদের দেশেও ধীরে ধীরে এমনটা হয়ে যাচ্ছে।

বিএনপি-জামায়াত সরকারের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০০১ সালে পেছন থেকে উৎসাহ দিয়ে তাদের ক্ষমতায় এনেছিল। কিন্তু সে সময় বাংলাদেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন, বাংলা ভাই সৃষ্টি, জঙ্গিবাদ সৃষ্টি, ৫০০ জায়গায় এক দিনে বোমা হামলা, বিরোধী দল আমাদের ওপর গ্রেনেড হামলা, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ওপর গ্রেনেড হামলা, কামরানের ওপর দুই বার গ্রেনেড হামলা হয়েছে।

রাজনৈতিক চিন্তাভাবনা যদি মানুষকে ঘিরে হয়, তাহলে সেটাই টিকে থাকে বলে মন্তব্য করেন সরকারপ্রধান।

আওয়ামী লীগ সরকারে আসলে মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি হয় মন্তব্য করে দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, এর কারণ মাটি ও মানুষের মধ্য থেকে উঠে এসে মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করেই এ সংগঠনটা তৈরি। আমাদের চেতনাটা ওখানেই থাকে।

সাড়ে তিন ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, রাষ্ট্রদূত-অ্যাট-লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমম্বয়ক জুয়েনা আজিজ এবং প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের সঞ্চালনায় বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বিগত তিন বছরের কাজের ওপর একটি বিবরণ উপস্থাপন করেন।