মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন এবং বাংলাদেশ-ফ্রান্স ও ইউনেস্কোর দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের পাঁচ দশক পূর্তি উপলক্ষ্যে ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও ইউনেস্কোর স্থায়ী প্রতিনিধি খন্দকার এম তালহা এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন। এতে ৬৭ টি দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক, ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ইউনেস্কোর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, গণমাধ্যমের প্রতিনিধি, বাংলাদেশি সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারা অংশগ্রহণ করেন।

প্যারিসের পাঁচ তারকা মানের হোটেল প্যাভিলিয়ন রয়্যালে আয়োজিত এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আগত প্রায় দুশতাধিক অতিথিদের অভ্যর্থনা জানান রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা ও তার সহধর্মিণী মাসুমা হক।

দূতাবাসের হেড অফ চ্যান্সেরি ওয়ালিদ বিন কাশেম এর উপস্থাপনায় উপস্থিত অতিথিদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন খন্দকার এম তালহা ও ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এশিয়া ওশেনিয়া অঞ্চল এর পরিচালক বেরথ্র্যান্ড লর্থলারি।
রাষ্ট্রদূত খন্দকার এম তালহা বলেন, ফ্রান্সের সাথে আমাদের রাজনৈতিক ও অথনৈতিক উন্নয়নের অপার সম্ভাবনা রয়েছে। স্বাধীনতার শুরুতেই ১৯৭২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি ফ্রান্স সরকার সদ্য-স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদান করে এবং ফ্রান্স বাংলাদেশকে অন্যতম বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র। আমরা আশা করি উভয়দেশের মধ্যকার এ উষ্ণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আমাদের ভবিষ্যতে রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত ক্ষেএে অপার সম্ভাবনা তৈরি করবে।

অনুষ্ঠানে ভারত, পাকিস্তান, সুইজারল্যান্ড, সৌদিআরব, কুয়েত, ওমান, জার্মান, ইরান, অষ্ট্রেলিয়া, আজারবাইজান, ভিয়েতনাম, নেপাল, মিশর, তিউনেশয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাসের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশীয় ঐতিহ্যবাহী খাবার ও মিষ্টান্ন দিয়ে অতিথিদের আপ্যায়ন করা হয় এবং বাংলাদেশ থেকে আগত শিরোনামহীন ব্যান্ডের মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়।