দীর্ঘ দু’বছর পেন্ডামিকের পর বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস গত ২৬ ও ২৭শে মার্চ ২০২২ স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজন করে ১৪তম বাংলাদেশ ডে প্যারেড ও ফেস্টিবল।

২৬শে মার্চ ফেস্টিবল এর উদ্বোধন করেন সিটি অব সান্তা ক্লারিটার কাউন্সিল মেম্বার বিল মিরানডা এবং অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ৩৮ ডিস্ট্রিক্টের প্রাক্তন কাউন্সিল ওমেন ক্রিসটি স্মিথ ও প্রধান অতিথি গ্রান্ড স্পন্সর মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী।

পেন্ডামিকের পর এই প্রথম কমিউনিটির মানুষ ফেস্টিবলের মাধ্যমে একত্রিত হওয়ার সুযোগ পাওয়ার অসংখ্য মানুষের সমাগম হয়।
উক্ত দিন দুপুর দুইটা থেকে লস এঞ্জেলেসের প্রধান দুটি মহাসড়ক বন্ধ করে প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়। লিটল বাংলাদেশ এর থার্ড স্ট্রীষ্ট এবং নরমেন্ডি থেকে প্রথম স্ট্রীষ্ট ও ভারমন্ট এর ভারজিল মিডল হাইস্কুল এর ফেস্টিবল গ্রাউন্ড পর্যন্ত এ প্যারেড চলে। প্যারেড অংশগ্রহণ করে কমিউনিটির বিভিন্ন সংগঠন। এছাড়াও ছিল বিদেশী কমিউনিটির সংগঠন। প্যারেডের শুরুতে অশ্বারহি, দু’দেশের বিশাল পতাকা সহ মার্চব্যান্ড। প্যারেডের সময় রাস্তার দু’ধারের দর্শকদের আনন্দ উপভোগ করতে দেখা যায়। প্যারেডের গ্রান্ড মার্শাল ছিলেন লস এঞ্জেলেস পুলিশ চীপ মাইকেল মুর এবং অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন লস এঞ্জেলেস সিটি কাউন্সিল মেম্বার নিথিয়া রামেন।

সার্বিক প্যারেড ও ফেস্টিবল পরিচালনায় ছিলেন শিপার চৌধুরী (প্রেসিডেন্ট) ও জিয়া ইসলাম (সাধারণ সম্পাদক)।

উভয় দিনের সংস্কৃতির সন্ধ্যায় শিল্পী ছিলেন বাংলাদেশ থেকে আগত লাবনী, লন্ডন থেকে আগত দিনা জাহান মুন্নি, এরিজোনা থেকে এম এ শোয়েব, নিউ ইয়র্ক থেকে শাহ মাহবুব সহ স্হানীয় প্রতিথ যশ শিল্পীবৃন্দ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনায় রশনি আলম। তার সাথে ছিলেন শহিদুল ইসলাম ও কেয়া।

বাফলা পদক পান মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) এনামুল হামিদ। সাংবাদিকতায় রিকোগনিশন এওয়াড পান লস্কর আল মামুন।

রিকগনিশনে সমাজ সেবায় পান আব্দুল মান্নান এবং আরো ছিলেন সামসুদ্দিন মানিক ও জসিম আশরাফি।

বাংলাদেশ ডে প্যারেড উপলক্ষে বাফলা একটি অপরাজেয় নামে মনোজ্ঞ সংকলন প্রকাশ করে। সম্পাদনায় আব্দুস সামাদ।বাংলাদেশ ডে প্যারেড উপলক্ষে বাফলা একটি অপরাজেয় নামে মনোজ্ঞ সংকলন প্রকাশ করে। সম্পাদনায় আব্দুস সামাদ।