২০১৭ সালে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নকে গণহত্যা বলে স্বীকৃতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এ তথ্য জানিয়েছেন।

ওয়াশিংটন ডিসিতে ইউএস হলোকাস্ট মেমোরিয়াল মিউজিয়ামে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে ব্লিঙ্কেন বলেন, ‘আমি নিশ্চিত যে বার্মার সামরিক বাহিনীর সদস্যরা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ করেছে। রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে আক্রমণটি ছিল ব্যাপক ও নিয়মতান্ত্রিক, যা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ নির্ণয়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’

তিনি বলেন, ‘সাক্ষাৎকার দেওয়া তিন-চতুর্থাংশ জানিয়েছেন, তারা ব্যক্তিগতভাবে সামরিক সদস্যদের কাউকে হত্যা করতে দেখেছেন। অর্ধেকেরও বেশি যৌন সহিংসতার সাক্ষী। প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন গণহত্যার ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে, অর্থাৎ একটি ঘটনায় শতাধিককে হত্যা বা জখম করা হয়েছে। এই হারগুলো গুরুত্বপূর্ণ।’

জাতিসংঘের তদন্তকারীদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ সালে ‘গণহত্যার উদ্দেশ্যে’ মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের হত্যা ও গণধর্ষণ করেছিল। ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাদের হাতে অন্তত ছয় হাজার ৭০০ রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে অধিকার গ্রুপ ডক্টর্স উইদাউট বর্ডার।

Previous post পুতিনের সাথে ফের সরাসরি বৈঠকের ডাক জেলেনস্কির
Next post আইএলও কনভেনশন ১৩৮ অনুসমর্থন বাংলাদেশের
Close