এবার কারাগারে বসে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন রাশিয়ার বিরোধী নেতা অ্যালেক্সাই নাভালনি। বুধবার তিনি রাশিয়াজুড়ে ইউক্রেনে আগ্রাসনের প্রতিবাদে আন্দোলন বেগবান করতে বলেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এরপর রাশিয়াসহ অন্যান্য দেশেও পুতিনবিরোধী আন্দোলন শুরু হয়। এমন পরিস্থিতিতেই কারাগারে বসে পুতিনের বিরুদ্ধে আন্দোলন আরও জোরদার করার ডাক দিলেন রাশিয়ার বিরোধী নেতা নাভালনি। খবর রয়টার্সের।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের রুশভাষী ডনবাস উপত্যকার দুটি শহর ডোনেৎস্ক ও লুহানস্ককে স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেয় রাশিয়া। এরপর আরও ছয়টি দেশ শহর দুটিকে স্বীকৃতি দেয়। ইউক্রেনে হামলা শুরু করলে জাতিসংঘে রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব গৃহীত হয় এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো একের পর এক নিষেধাজ্ঞা দিতে থাকে।

অ্যালেক্সাই নাভালনি কে?

২০০৭ সাল থেকে রাশিয়ার পুতিন সরকারের দুর্নীতির প্রচার করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার অনুসারীর সংখ্যা লাখ ছাড়িয়ে যায়। ২০০৮ সালে রাশিয়ার রাজনীতিতে তিনি আত্মপ্রকাশ করেন এবং একাধিকবার কারাগারে যেতে হয় তাকে। কয়েকবার প্রাণনাশের হুমকিও পান তিনি। অ্যালেক্সাই নাভালনির কারামুক্তির জন্য তার সমর্থকরা বিক্ষোভও করেছেন। সর্বশেষ ২০২১ সালের আগস্টে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে জার্মানিতে নিয়ে যাওয়া হয়। ১৭ জানুয়ারি সুস্থ হয়ে দেশে ফেরার সঙ্গে সঙ্গে রাশিয়ার এ রাজনীতিবিদকে আবার গ্রেপ্তার করা হয়। অনেকে মনে করেন, পুতিন সরকারের দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অনলাইন মাধ্যম ব্লগ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লেখালেখির কারণে ক্রেমলিন তাকে অনেক ভয় পায়।

রুশ অর্থনীতিবিদ সার্গেই গুরিয়েভ মনে করেন, নাভালনিকে নিয়ে ক্রেমলিনের ভয়ের দুটি কারণ রয়েছে। একটি হলো, তিনি সরকারের দুর্নীতির বিষয়টি কয়েক বছর ধরে প্রচার করেছেন। যার ফলে পুতিনের জনসমর্থন কমেছে। আরেকটি হলো, রাশিয়ার বর্তমান শাসনব্যবস্থায় পুতিনের বিকল্প অ্যালেক্সাই নাভালনি।

আর সেই কারণে পুতিনের গলার কাঁটা অ্যালেক্সাই নাভালনি।

Previous post জাতীয় সরকার ছাড়া দেশে গণতন্ত্র ফিরবে না : জাফরুল্লাহ
Next post ইউক্রেনকে তিন হাজার কোটি টাকার অস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
Close