মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারের নিয়ন্ত্রণ নিতে ২৫টি এজেন্সি সিন্ডিকেট করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন রিক্রুটিং এজেন্সির মালিকরা। তারা এই সিন্ডিকেট বন্ধের দাবি জানিয়ে এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সাধারণ রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকদের ব্যানারে সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে রিক্রুটিং এজেন্সি মালিকদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী সারাভানান ২৫ এজেন্সির তালিকা চেয়ে সরকারের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন। কিন্তু তারা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার নিয়ে কোনো সিন্ডিকেট দেখতে চান না।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দেশের সব বৈধ লাইসেন্সধারী এজেন্সিকে কর্মী নিয়োগে সুযোগ দিতে হবে। মালয়েশিয়ার সব এজেন্সি যুক্ত থাকলে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ২৫ এজেন্সি কেন হবে, সেটা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা।

এজেন্সি মালিকরা বলেন, ২৫টি রিক্রুটিং এজেন্সির সাব–এজেন্ট হিসেবে ২৫০ এজেন্সি কাজ করবে। একটি বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সি কেন সাব এজেন্ট হিসেবে কাজ করবে? এই সাব এজেন্টের নামে এজেন্সি মালিকদের দালালের ভূমিকায় নামাচ্ছে তারা।

এ সময় তারা মালয়েশিয়ার এই প্রস্তাবকে অনৈতিক ও অবমাননাকর আখ্যা দিয়ে জানান, প্রতিবেশী দেশ নেপালের এক হাজার ৬০০–এর বেশি এজেন্সি মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠায়।

বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া যৌথ কারিগরি কমিটির সভায় সব এজেন্সির সমান সুযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করার দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন রিক্রুটিং এজেন্সিজ ঐক্য পরিষদের সভাপতি টিপু সুলতান।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, মধ্যপ্রাচ্যের প্রবাসী কর্মীদের কাছ থেকে তিন গুণ ভাড়া নিচ্ছে বাংলাদেশ বিমানসহ বেসরকারি উড়োজাহাজগুলো। এটা বন্ধের দাবি জানান তারা।

সংবাদ সম্মেলনে রিক্রুটিং এজেন্সিজ ঐক্য পরিষদ, বায়রা সদস্য কল্যাণ পরিষদ, সম্মিলিত সমন্বয় ফ্রন্ট বায়রা, রিক্রুটিং এজেন্সিজ ওয়েলফেয়ার অরগানাইজেশন অব বাংলাদেশ, সচেতন বায়রা গণতান্ত্রিক ফোরাম, বায়রা গণতান্ত্রিক ঐক্য ফ্রন্ট, স্বাধীনতা রিক্রুটিং এজেন্সিজ পরিষদের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Previous post বাংলাদেশের সঙ্গে ‘বিজনেস ফোরাম’ গঠনে আগ্রহী ওমান
Next post আ. লীগ দেশে দ্বিতীয় বাকশালী রাজত্ব কায়েম করেছে: মির্জা ফখরুল
Close