সফল পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে বিদেশের বুকে বাংলাদেশের গৌরব সমুন্নত রাখা, সিলেট-ঢাকা মহাসড়ক ৬ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প অনুমোদন ও সিলেটের উন্নয়নের বিশেষ অবদান রাখায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ড. একে আবদুল মোমেনকে নাগরিক সংবর্ধনা দিয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন।

বুধবার বিকাল ৩টায় স্থানীয় রেজিস্ট্রারি মাঠে এই সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। সিসিকের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বিএনপিদলীয় হওয়ায় শুরু থেকেই এই আয়োজনে যোগদান না করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়েছিল স্থানীয় আওয়ামী লীগ। সব জল্পনা-কল্পনা ভেঙে অবশেষে নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

তবে অবস্থান থেকে সরেনি স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যোগ দেয়নি এই অনুষ্ঠানে। যদিও স্থানীয় আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্যও দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, সিলেটের উন্নয়নে দল ও মতের বিবেচনা নয়, উন্নয়নকেই প্রাধান্য দিতে হবে। স্বাগতিক বক্তব্যে সিটি মেয়র আরিফুর হক চৌধুরীও নগরীর উন্নয়নে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সহায়তা অব্যাহত রাখার দাবি জানান।

বুধবার দুপুর থেকে সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠের সংবর্ধনা অনুষ্ঠাস্থলে দল-মত নির্বিশেষে লোকজন আসতে থাকেন। বিকাল ৩টা পর্যন্ত কানায় কানায় ভর্তি হয়ে যায় রেজিস্ট্রারি মাঠ। বেলা ৩টা ১০ মিনিটের দিকে অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আরিফুল হক চৌধুরীর বিভিন্ন সময় আওয়ামীবিরোধী বক্তব্য প্রদানের অজুহাতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা ‘বয়কট’ করলেও যোগ দেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন- সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের সভাপতি ও সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকবাল সিদ্দিকী, সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আল আজাদ, সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি তাহমিন আহমেদসহ অন্যান্যরা।

স্বাগত বক্তব্যে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সিলেট নগরীর উন্নয়নে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেনের প্রচেষ্টা তুলে ধরেন। মেয়র বলেন, সাড়ে ২৬ বর্গকিলোমিটারের সিটি করপোরেশন এখন প্রায় তিনগুণ আয়তন বেড়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায়।

মেয়র উল্লেখ করেন, সিলেট–ঢাকা ৬ লেনসহ নগরীতে যে উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে, তাতে অনেক অবদান রয়েছে মুহিত ও মোমেনের। একটি মডেল নগরী গড়তে দল-মত নির্বিশেষে সবার সহযোগিতাও চান আরিফুল হক চৌধুরী।