আগামী নির্বাচন বানচাল করার চক্রান্তের অংশ হিসেবে রাষ্ট্রপতির সংলাপকে বিএনপি নাটক বলছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু।

বুধবার (২২ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির সংলাপে অংশ নিয়ে বঙ্গভবনের সামনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

হাসানুল হক ইনু বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতির সংলাপকে যারা নাটক বা প্রহসন বলছেন তাদের উদ্দেশ্যে বলব, আপনারা সংলাপে গেলে তখন বুঝবেন নাটক নাকি ভালো কিছু। সংলাপে না গিয়ে নাটক বা প্রহসন বলা বাঞ্ছনীয় নয়। আগে সংলাপে ঢোকেন তারপর বুঝবেন এটা নাটক নাকি অন্য কিছু। যারা রাষ্ট্রপতির উদ্যোগকে স্বাগত না জানিয়ে নাকচ করে দিচ্ছেন, তারা কিন্তু সংলাপ প্রক্রিয়াকে বানচাল করতে চান। যারা নির্বাচন বানচাল করতে চান তারা সংলাপ প্রক্রিয়াকেও বানচাল করতে চান।

জাসদ সভাপতি বলেন, ২০১৪ ও ২০১৮ সালের নির্বাচন বিএনপি বানচাল করতে চেয়েছিল, এটা দুঃখজনক। সুতরাং তারা আগামী নির্বাচনকে বানচাল করার চক্রান্তের অংশ হিসেবে সংলাপ বানচাল করতে চায়।

নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য যে সার্চ কমিটি করা হবে সেখানে একজন নারী এবং একজন অধ্যাপককে অন্তর্ভুক্তির কথা জাসদের পক্ষ থেকে প্রস্তাব করা হয়েছে বলে জানান তিনি। এসময় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে হওয়া আলোচনার কিছু অংশ সাংবাদিকদের জানান ইনু।

তিনি বলেন, আমরা রাষ্ট্রপতিকে বলেছি, সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অনধিক চার নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের ক্ষমতা মহামান্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে এককভাবে আপনার ওপর অর্পিত হলেও নির্বাচন কমিশন গঠনে রাজনৈতিক দলগুলোর মতামত গ্রহণের জন্য দলগুলোর সঙ্গে আলোচনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এ উদ্যোগকে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সাধুবাদ জানায়।

পাশাপাশি এ উদ্যোগে জাসদকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য রাষ্ট্রপতিকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানায় জাসদ।

জাসদ সভাপতি বলেন, সংবিধানে নির্বাচন কমিশন গঠনের সুনির্দিষ্ট আইন প্রণয়নের তাগিদ দেওয়া থাকলেও দুর্ভাগ্যক্রমে এখনও পর্যন্ত সে আইন প্রণীত হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের দল জাসদ মনে করে যে তুলনামূলকভাবে যথোপযুক্ত দক্ষ ব্যক্তিদের খুঁজে বের করতে সার্চ কমিটি গঠন একটি গ্রহণযোগ্য প্রক্রিয়া। আমরা আশা করি যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটি গঠন করে যথোপযুক্ত দক্ষ ব্যক্তিদের খুঁজে বের করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ দেবেন।

তিনি বলেন, আমাদের দল জাসদ আরও মনে করে যে নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতির উদ্যোগে সার্চ কমিটি গঠন করার প্রক্রিয়াকে সুনির্দিষ্ট ও স্থায়ী কাঠামোগত রূপ দেওয়াসহ নির্বাচন কমিশন গঠনের সুনির্দিষ্ট আইন প্রণয়ন করে নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে সব বিতর্কের অবসান করা প্রয়োজন।

ইনু বলেন, জাসদ মনে করে, সার্চ কমিটি গঠনে ব্যক্তির নাম প্রস্তাব করা সমীচীন নয়। আমরা বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের চেয়ারম্যান, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক সহ সাংবিধানিক পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তিদের মধ্য থেকেই সার্চ কমিটির সদস্য মনোনয়ন দেওয়া সমীচীন বলে মনে করি।

রাষ্ট্রপতির সংলাপে আরও উপস্থিত ছিলেন জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরিন আক্তার, কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট রবিউল আলম, সহসভাপতি মীর হোসাইন আক্তার, রেজাউল করিম তানসেন, স্থায়ী কমিটির সদস্য মোশারফ হোসেন।

Previous post ব্রুনাইয়ে ময়লা আনতে গিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ করল বাংলাদেশি যুবক
Next post মালদ্বীপ পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী
Close