স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে তিন দিনের সফরে আসা ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বাংলাদেশের আতিথিয়তায় মুগ্ধ হয়েছেন। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের জনগণের উষ্ণতা ও ভালবাসা গভীরভাবে ছুঁয়েছে।

শুক্রবার ভারতীয় নাগরিক ও ঢাকায় ভারতীয় বন্ধুদের জন্য এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রামনাথ কোবিন্দ বলেন, ‘ভারত-বাংলাদেশ বন্ধুত্বের এই ঐতিহাসিক ৫০তম বছরে আজ ঢাকায় আসতে পেরে আমি আনন্দিত। একজন ঘনিষ্ঠ প্রতিবেশীর সঙ্গে দেখা করার আনন্দ ও সম্মানের পাশাপাশি বাংলাদেশের জনগণের উষ্ণতা ও ভালবাসা আমাকে গভীরভাবে ছুঁয়েছে। আপনাদের সঙ্গে দেখা করার ঠিক আগেই আমি ঐতিহাসিক রমনা কালী মন্দির থেকে ফিরেছি। সেখানে সংস্কার করা মন্দির উদ্বোধন করার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। আমি একে মা কালীর আশীর্বাদ হিসেবে দেখি।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে একটি শক্তিশালী অর্থনীতির দিকে তার যাত্রায় সহায়তা করতে এবং বৃহত্তর সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় অংশীদার হতে ভারত প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ভারতের রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমাকে বলা হয়েছে যে বাংলাদেশ-ভারতের সরকার ও জনগণ মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনী কর্তৃক ধ্বংসকৃত মন্দিরটি পুনরুদ্ধারে সহায়তা করেছে। দখলদার বাহিনীর হাতে বিপুলসংখ্যক মানুষ এখানে নিহত হয়। মন্দিরটি ভারত ও বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে আধ্যাত্মিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধনের প্রতীক। এটি আমার বাংলাদেশ সফরের একটি শুভ সমাপ্তি ঘোষণা করবে।’

তিনি বলেন, আমার প্রথম বাংলাদেশ সফর এই বিশেষ বছরে ঘটছে, যখন আমরা যৌথভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং আমাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার ৫০তম বার্ষিকী উদযাপন করছি।

স্বৈরাচার থেকে স্বাধীনতা অর্জনে বাংলাদেশের জনগণের ত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, ভয়ঙ্কর প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্য আপনাদের অদম্য সাহসিকতাকে আমরা অভিনন্দন জানাই। আমি আপনাদের ভারতীয় বন্ধুদের এবং ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর আত্মত্যাগের প্রতিও শ্রদ্ধা জানাই, যারা একটি নৈতিক কারণে তাদের প্রাণ দিয়েছিলেন।

ভারতীয়দের হৃদয়ে বাংলাদেশের একটি বিশেষ স্থান রয়েছে উল্লেখ করে রামনাথ কোবিন্দ বলেন, আমাদের রয়েছে আত্মীয়তা, ভাগাভাগি করা ভাষা এবং সংস্কৃতির প্রাচীন বন্ধনের ওপর ভিত্তি করে রচিত এক অনন্য ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। আমাদের সম্পর্ক দুই দেশের বিচক্ষণ নেতৃত্বের দ্বারা লালিত হচ্ছে।

Previous post মুক্তধারা ফাউন্ডশনের বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী ১৯ ডিসেম্বর
Next post মালদ্বীপে মহান বিজয় দিবস উদযাপন
Close