তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত আওয়ামী লীগের আগামী কার্যনির্বাহী সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন দলটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

হানিফ বলেন, কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ অভিযোগ প্রমাণিত হলে, তিনি যত বড় নেতাই হোন না কেন, তাকে অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে। ইতিমধ্যে ডা. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রিপরিষদ থেকে পদত্যাগ করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। তাকে দল থেকেও বহিষ্কারের বিষয়ে দলের আগামী কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে।

ডা. মুরাদ হাসান সম্প্রতি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তার নাতনি জাইমা রহমানকে নিয়ে ‘নারীবিদ্বেষী’ বক্তব্য দিয়ে ব্যাপক সমালোচিত হন। এ আলোচনার মধ্যেই চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহিকে ধর্ষণের হুমকি সংবলিত অডিও ফাঁস হয়। যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ দেশজুড়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে তথ্যপ্রতিমন্ত্রী। এর জেরে ডা. মো. মুরাদ হাসানকে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।