করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়্যান্ট ওমিক্রনের কারণে আফ্রিকা মহাদেশের সাতটি দেশ থেকে ভ্রমণে নতুন করে কিছু বিধিনিষেধ জারি করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।
নতুন নির্দেশনা অনুসারে, দক্ষিণ আফ্রিকা, বতসোয়ানা, ইসোয়াতিনি, ঘানা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে ও লেসোথো- এ সাত দেশ থেকে বাংলাদেশে এলে ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। বেবিচক গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে ভ্রমণসংক্রান্ত এ বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।
এ ছাড়া বেবিচক বলছে, যেকোনো দেশ থেকে বাংলাদেশে আসতে হলে যাত্রার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষা করে নেগেটিভ সনদ থাকতে হবে। এর আগে এ সময়সীমা ছিল ৭২ ঘণ্টা। তবে, অনূর্ধ্ব ১২ বছর বয়সিদের ক্ষেত্রে করোনা পরীক্ষা করা বাধ্যতামূলক নয়।
বেবিচকের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, বতসোয়ানা, ইসোয়াতিনি, ঘানা, নামিবিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, জিম্বাবুয়ে ও লেসোথো থেকে কেউ বাংলাদেশে এলে তাঁকে নিজ খরচে বাংলাদেশ সরকার নির্ধারিত হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।
এ ক্ষেত্রে উড়োজাহাজে ওঠার আগেই কোয়ারেন্টিনে থাকার জন্য সরকার নির্ধারিত হোটেল নির্বাচন করতে হবে।
বাংলাদেশে এসে কোয়ারেন্টিনে থাকার সময়ে যাত্রীকে সাত দিন পর প্রথম বার এবং ১৪ দিন পর দ্বিতীয় বার করোনার পরীক্ষা করা হবে। এসব করোনা পরীক্ষার খরচ যাত্রীকে বহন করতে হবে।
বেবিচকের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, হোটেলে কোয়ারেন্টিনের সপ্তম দিনে করোনা পরীক্ষায় পজিটিভ রিপোর্ট এলে যাত্রীকে আলাদা করে আইসোলেশনে পাঠানো হবে। আর নেগেটিভ রিপোর্ট এলে হোটেলে বাকি সাত দিন কোয়ারেন্টিনে থাকা লাগবে। এর পর ১৪তম দিনে দ্বিতীয় করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট এলে যাত্রী কোয়ারেন্টিন কেন্দ্র থেকে চলে যেতে পারবেন।
বেবিচকের এ নির্দেশনা আগামীকাল শনিবার থেকে কার্যকর হবে বলে সংস্থার ফ্লাইট স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড রেগুলেশনসের সদস্য গ্রুপ ক্যাপ্টেন চৌধুরী এম জিয়া উল কবির স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়েছে।
এ ছাড়া আফ্রিকার সাত দেশ ছাড়া অন্যান্য দেশ থেকে এলে ২৩ অক্টোবর জারি করা বেবিচকের নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে।