মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম দেশ সৌদি আরবের বিভিন্ন অঞ্চলে বাংলাদেশী প্রবাসীদের একটা বড় অংশ বসবাস করেন। ইউএস-বাংলার অগ্রযাত্রার সাথে সাথে সৌদি প্রবাসী বিশেষ করে জেদ্দা, রিয়াদ, মদিনা, দাম্মামে অবস্থানরত বাংলাদেশীদের যাত্রীসেবা দেয়ার জন্য আসছে বছরের জুন থেকে ঢাকা থেকে জেদ্দা, রিয়াদ ও মদিনা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করার পরিকল্পনা নিয়েছে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ঢাকা থেকে জেদ্দা, রিয়াদ ও মদিনায় ফ্লাইট চলাচলের জন্য বিশ্ববিখ্যাত এয়ারলাইন্স এমিরেটস, কাতার এয়ারওয়েজ, সৌদি এয়ারলাইন্স যে ধরনের এয়ারক্রাফট বিশেষ করে এয়ারবাস ৩৩০-২০০/৩০০ ব্যবহার করে থাকে, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সও বাংলাদেশী প্রবাসীদের একই ধরনের এয়ারক্রাফট ব্যবহার করে যাত্রীসেবা দেয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে।

২০১৪ সালের ১৭ জুলাই থেকে যাত্রা শুরু করা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স গত প্রায় ৮ বছর যাবত স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এভিয়েশন মার্কেটে যাত্রীদের মধ্যে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। যাত্রা শুরুর পর ধারাবাহিকভাবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স দেশের অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে, এমনকি ক্রস কান্ট্রি ফ্লাইট ধারনা থেকে যশোর থেকে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার কিংবা সৈয়দপুর থেকে চট্টগ্রামে ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স তার প্রতিষ্ঠার দু’বছর পূর্তি হওয়ার আগেই ঢাকা থেকে কাঠমান্ডু রুটে ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রবেশ করে। ব্যবসায়ের অগ্রযাত্রার স্থিতিশীলতা বজায় রেখে এগিয়ে চলা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স এর বিমান বহরে ৪টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, ৭টি ব্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ সহ মোট ১৪ টি এয়ারক্রাফট রয়েছে।

আগামী পাঁচ মাসের মধ্যে বিমান বহরে ৩টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ ও ৪টি ব্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ যোগ করতে যাচ্ছে ইউএস-বাংলা। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম গন্তব্য জেদ্দা, রিয়াদ, মদিনা রুটসহ ইউরোপে বিশেষ করে লন্ডন, আমস্টারডাম, রোম সহ বিভিন্ন গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনার জন্য ২০২২ ও ২০২৩ সালের মধ্যে আটটি এয়ারবাস ৩৩০-২০০/৩০০ এয়ারক্রাফট যুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ বেসরকারী এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

পরিকল্পনা অনুযায়ী স্বাধীনতার পর চীনের কোন গন্তব্যে বাংলাদেশী এয়ারলাইন্স হিসেবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ঢাকা থেকে গুয়াংজু রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। সেই সংগে বাংলাদেশ থেকে ভারতের চেন্নাই ও কলকাতায় বিপুল সংখ্যক রোগী চিকিৎসা সেবা নেয়ার উদ্দেশ্যে ভ্রমণকারীদের সেবা দেয়ার জন্য ঢাকা থেকে চেন্নাই ও কলকাতায় সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

বাংলাদেশী শ্রমিকদের আধিক্য আছে তেমনি মাস্কাট, দোহা, দুবাই, কুয়ালালামপুর, সিঙ্গাপুর, মালে ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। বাংলাদেশী পর্যটকদের জন্য সাময়িকভাবে ঢাকা-ব্যাংকক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ আছে। খুব শীঘ্রই ঢাকা থেকে কলম্বো রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করতে যাচ্ছে ইউএস-বাংলা।

পরিকল্পনা আর বাস্তবায়ন এর সাথে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ এভিয়েশনের সর্বকনিষ্ঠ এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলা। সঠিক পরিকল্পনা আর বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আগামী বছরের জুন মাসে এয়ারবাস ৩০০-২০০/৩০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ঢাকা থেকে জেদ্দা, রিয়াদ ও মদিনাতে সরাসরি ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।