এ বছর যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষার্থী পাঠানোর তালিকায় ৩ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষার্থী পাঠানোর দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান ১৪তম। গত বছর বাংলাদেশ ১৭তম অবস্থানে ছিল।

২০২১ ওপেন ডোরস রিপোর্ট অন ইন্টারন্যাশনাল এডুকেশনাল এক্সচেঞ্জ নামে মার্কিন পররাষ্ট্র বিভাগের শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক ব্যুরোর এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে।

আন্তর্জাতিক শিক্ষা সপ্তাহ (আইইডব্লিউ) উপলক্ষে ওই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২০-২১ শিক্ষার্থীবর্ষে মোট ৮ হাজার ৫৯৮ জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে গিয়েছে।

মহামারির সময়ে বিশ্বব্যাপী আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের সংখ্যা কমে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে ২০২০ সালের তুলনায় বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের সংখ্যা মাত্র ২ দশমিক ৭ শতাংশ কমেছে।

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০২১ উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত যুক্তরাষ্ট্রের নারীদের উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিষয়ক এক ভার্চুয়াল সেমিনারে যুক্তরাষ্ট্রের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স হেলেন লাফেভ বলেন, ‘কোভিড-১৯ যখন বিশ্বব্যাপী চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে, সেই সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষাগ্রহণ করতে দেখা আনন্দের ও অনুপ্রেরণামূলক।’

মিজ লাফেভ আরও বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের যুক্তরাষ্ট্রে লেখাপড়া করার পথ খুঁজে পেতে সহায়তা করবে।’

তিনি অংশগ্রহণকারীদের উচ্চ শিক্ষার সুযোগ সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য বাংলাদেশের ঢাকা, চট্টগ্রাম ও খুলনায় অবস্থিত ৪টি আমেরিকান স্পেসে থাকা এডুকেশনইউএসএ উপদেষ্টাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস ‘এডুকেশন ইউএসএ বাংলাদেশ’-এর মাধ্যমে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ও স্কলারদের জন্য বেশ কয়েকটি ভার্চুয়াল প্রোগ্রামের আয়োজনের মধ্য দিয়ে এ বছরের ‘আন্তর্জাতিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০২১’ উদযাপন করছে।

বাংলাদেশে অবস্থিত এডুকেশনইউএসএ-এর পরামর্শ কেন্দ্রগুলো কয়েকটি বিষয়ের উপর ওয়েবিনার আয়োজন করবে; যার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে নারীদের কলেজের ওপর অধিবেশন, লিবারেল আর্টস শিক্ষা, যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বাংলাদেশি শিক্ষার্থী পরিষদগুলোর সঙ্গে কথোপকথন এবং যুক্তরাষ্ট্রে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর উভয় শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত অন্যান্য বিষয়।

বক্তাদের মধ্যে থাকবেন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকর্তা, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও ভর্তি কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত থাকা কর্মকর্তা, যারা তাদের আলোচনায় কীভাবে ভর্তির আবেদন লিখতে হবে, স্কলারশিপ বা বৃত্তি এবং আর্থিক সহায়তা পাওয়ার জন্য কী করণীয় জানানোর পাশাপাশি সম্ভাব্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে লেখাপড়া করা সংক্রান্ত মনোভাব ও দৃষ্টিভঙ্গি বিনিময় করবেন।