অস্ট্রেলিয়ার সিডনির রকডেলে এক আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে গতকাল রবিবার বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করেছে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ। সংগঠনের সভাপতি মোস্তাক মেরাজের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল নোমান শামীমের সঞ্চালনায় এ মিলনমেলায় সংগঠনের বিভিন্নপর্যায়ের নেতৃবৃন্দ অংশ নেন। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য যুবনেতা বাবু সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গামা আব্দুল কাদির, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার নির্মল্য তালুকদার, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা ও অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা শফিকুল আলম, অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এমদাদ হক।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য যুবনেতা বাবু সুভাষ চন্দ্র হাওলাদার ভার্চুয়ালি বাংলাদেশ থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন। তিনি বলেন, ‘কিংবদন্তি যুবনেতা শেখ ফজলুল হক মনির প্রতিষ্ঠিত এই ঐতিহ্যবাহী যুবসংগঠন বর্তমান মানবিক চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সংগ্রামী সাধারণ সম্পাদক মো. মইনুল হোসেন খান নিখিলের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে শুধু ঐক্যবদ্ধই না, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আজ তার মানবিক কাজের মাধ্যমে সবার মন জয় করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগামীতেও জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পৃথিবীকে চমকে দেওয়া উন্নয়নমূলক কাজের গতির সাথে আধুনিক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে দেশে ও বিদেশে শক্তিশালী যুবলীগের বিকল্প নেই।’
তিনি উন্নত বিশ্বের কাতারে দাঁড়াতে উন্নয়নমুখী, জনবান্ধব, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে জোর দেন। এসময় অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের পক্ষ্য থেকে বক্তব্য দেন যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অপু সারোয়ার, সাংগঠনিক সম্পাদক মহীউদ্দীন মহী, এ কে এম হাফিজ, ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক আলী আশরাফ হিমেল, অস্ট্রেলিয়া ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ সদস্য মুয়ীদুজ্জামান সুজন, খন্দকার আরেফীন, ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা খন্দকার তরিকুল হাসান লিপুসহ অন্যান্য যুবনেতা।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে লাভ হবে না। জামায়াত-শিবির ও বিএনপির অপরাজনীতির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ সজাগ ছিল এবং থাকবে। সেই সাথে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে মানবিক ও মেধাভিক্তিক সামাজিক ও রাজনৈতিক কাজে অস্ট্রেলিয়া যুবলীগ তার সমস্ত শক্তি নিয়োগ করবে।’

সাংগঠনিক দক্ষতায় অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের সাথে কেন্দ্রীয় যুবলীগের সম্পৃক্ততা বাড়িয়ে আরও কাজ বেগবান করায় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই সভায় কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক কাজী সারোয়ার হোসেন ও উপ-আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক সফেদ আশফাক তুহিনকে বিশেষ ধন্যবাদ জানানো হয়।