জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, ‘রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম পরিবর্তন করার সাহস ক্ষমতা কারো নেই। সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম পরিবর্তন করার ঘোষণা দিয়ে গর্হিত কাজ করেছেন। তিনি সংবিধান সংরক্ষণের শপথ ভঙ্গ করেছেন। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ও সেনাবাহিনীকে কটূক্তি করেছেন তিনি। তাকে ক্ষমা চাইতে হবে।’

শনিবার দলের বনানী কার্যালয়ে জাপার গাজীপুর মহানগর এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেছেন বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের। সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম যোগ করায় সম্প্রতি তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান প্রয়াত রাষ্ট্রপতি এরশাদের সমালোচনা করেছেন। রাষ্ট্রধর্ম বাদ দেওয়ার কথা বলেছেন। জাপা তার বক্তব্যের প্রতিবাদে কয়েকদিন ধরেই মুখর। এ নিয়ে মুখ খুললেন দলের চেয়ারম্যানও।

জিএম কাদের বলেন, ‘২০১১ সালে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী পাস করেছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। তাতে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম সমুন্নত রয়েছে। প্রতিমন্ত্রী তা বাদ দেওয়ার কথা বলে আওয়ামী লীগের দলীয় শৃঙ্খলাও ভেঙেছেন। তিনি ক্ষমা না চাইলে দেশের মানুষ একদিন বিচার করবেন। এরশাদ ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম ঘোষণা করার সঙ্গে সঙ্গে সকল ধর্মের অধিকার সাংবিধানিকভাবেই নিশ্চিত করেছিলেন।’

জাপা চেয়ারম্যান আবারও বলেছেন, ‘নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন নিশ্চিত করতে নির্বাচন কমিশন গঠনে সংবিধান অনুযায়ী আইন করতে হবে। সার্চ কমিটির মাধ্যমে যে নির্বাচন কমিশন গঠন করা হচ্ছে, তা ফুটবল খেলায় একটি দলের পক্ষ থেকে রেফারি নিয়োগের মতো। আইন করে, উপযুক্ত ব্যক্তিদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করে নির্বাচনের সময় সকল ক্ষমতা তাদের হাতে দিতে হবে।’

সভায় আরও বক্তৃতা করেন জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য সাহিদুর রহমান টেপা, অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, মো. রেজাউল ইসলাম ভুঁইয়া প্রমুখ।