১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরতে মেহেরপুরে প্যানোরামিক জাদুঘর নির্মাণ করবে সরকার। তুরস্ক এই জাদুঘর নির্মাণ সংক্রান্ত বিভিন্ন ধারণা দিতে সহায়তা করবে বলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব খাজা মিয়া জানিয়েছেন।

তুরস্ক সফররত সচিব সেখানকার স্থানীয় আনাদোলু এজেন্সিকে জানান, বাংলাদেশ সরকার মহান মুক্তিযুদ্ধ ও জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের নানাদিন ওই প্যানারোমা জাদুঘরে ঠাঁই পাবে।

সচিব জানান, মেহেরপুরের মুজিবনগরে ওই জাদুঘর নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে সরকার। এছাড়া রাজধানীতে আরেকটি প্যানোরামিক জাদুঘর নির্মাণ করা হতে পারে পারে। তবে আপাতত সরকারের ঢাকাতে প্যানোরামিক জাদুঘর নির্মাণের কোনো পরিকল্পনা নেই সরকারের।

আনাদোলু এজেন্সিকে তিনি বলেন, প্যানোরামিক জাদুঘর নির্মাণের জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে আমরা ধারণা নিচ্ছি। তারই প্রথম ধাপ হিসেবে তুরস্ক সফর করছি। এছাড়া অন্যান্য দেশ থেকেও এ সংক্রান্ত তথ্য ও নকশা সংগ্রহের চেষ্টা করছেন বলে জানিয়েছেন সচিব।

তুরস্ক সফরকালে সচিব ইস্তাম্বুলের প্যানোরামা ১৪৫৩ হিস্ট্রি জাদুঘর এবং মধ্য আফিয়ন প্রদেশের ভিক্টরি জাদুঘরসহ বেশ কয়েকটি জাদুঘর পরিদর্শন করেন।

এ সময় খাজা মিয়া প্যানোরামিক মিউজিয়ামের ৩৬০-ডিগ্রি থ্রিডি পেইন্টিং দেখে মুগ্ধ হন। ওই জাদুঘরে ১৪৫৩ সালে ইস্তাম্বুল বিজয়ের চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

তবে এ নিয়ে তুরস্কের সঙ্গে কোনো আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়নি বলে জানিয়েছেন খাজা মিয়া। যদিও তুরস্কের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সহায়তা পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।

এছাড়া মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব তুরস্ক ‍ও বাংলাদেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন।

এ সময় সচিব বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য স্কলারশিপ বাড়ানোর ব্যাপারে তুরস্কের প্রতি আহ্বান জানান।