জার্মানিতে নির্বাচনে জিতেছে মধ্য বামপন্থী দল সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এসপিডি)। জয় পেয়েছে খুব কম ভোটের ব্যবধানে।

এসপিডি ২৫.৭ শতাংশ ভোট পেয়েছে। অন্যদিকে অ্যাঙ্গেলা মের্কেলের ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন অব জার্মানি বা সিডিইউ ও তার শরিক দল পেয়েছে ২৪.১ শতাংশ ভোট। তৃতীয় অবস্থানে থাকলেও দলগতভাবে ভোটে সবচেয়ে ভালো করেছে গ্রিনস। তারা পেয়েছে ১৪.৮ শতাংশ ভোট যা দলটির ইতিহাসে এযাবৎকালের সবচেয়ে বেশি। ১১.৫ শতাংশ ভোট পেয়েছে এফডিপি। এখন সরকার গঠন করতে হলে একটি জোট করতে হবে। খবর : বিবিসি

সমর্থকেরা ব্যাপক উচ্ছ্বাসের সঙ্গে ওলাফ শলৎজকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। পরে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ভোটাররা একটি ‘বাস্তবধর্মী সরকার’ গঠনে তাকে দায়িত্ব দিয়েছে।

অন্যদিকে অ্যাঙ্গেলা মের্কেলের আশীর্বাদপুষ্ট সম্ভাব্য উত্তরসূরি আরমিন লাশেট বলেছেন, সবচেয়ে বেশি ভোট পেলেই জয়ী হওয়া যাবে না। পুরো বিষয়টা এখন অঙ্কের হিসেব।

বুথফেরত জরিপে দুই দলই সমান ভোট পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছিল। তবে, শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অপ্রত্যাশিত পূর্বাভাস আসছিল এবং এই ফলাফলই যে শেষ নয় এমন ইঙ্গিত আগই পাওয়া যাচ্ছিল।

জোট সরকার গঠন হতে পারে গ্রিনস এবং এফডিপি’র মধ্যে। দুটি দলের কেউই আলাদা করে চমক না দেখালেও তাদের দুই দলের ভোট এক সঙ্গে করলে একটি জোট সরকার গঠনে বড় দুই দলের যে কারোর জন্য সেটি চমক হতে পারে। তবে তাদের এক ছাদের নিচে আনতে পারাই এখন বড় দুটি দলের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

সব মিলিয়ে এখন জটিল আকার ধারণ করেছে এই নির্বাচনের ফল। তবে এটা পরিষ্কার যে একটি জোট সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত কোথাও যাচ্ছেন না বিদায়ী চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল।