ওমানের মাসকট শহরে নিজ কর্মস্থলে দুর্ঘটনায় রফিকুল ইসলাম ইমন (২৬) নামে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। তিনি নোয়াখালীর কবিরহাট পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ঘোষবাগ এলাকার কাজী বাড়ির আবুল কালামের ছেলে।

গত শুক্রবার রাত ১১টায় ইমনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন তার প্রতিবেশী শরিফুল ইসলাম দিদার। তিনি জানান, তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে ইমন ছিলেন তৃতীয়। জীবিকার তাগিদে তার বড় ভাই নজরুল ইসলাম সুমনের সহযোগিতায় ২০১৫ সালে ওমানে পাড়ি জমান ইমন। ওমানের মাসকট শহরে ভবন তৈরির একটি কোম্পানিতে সুপারভাইজার হিসেবে কাজ নেন। ওমানে যাওয়ার পর আর দেশে ফেরেননি তিনি।

বাংলাদেশ সময় গতকাল শুক্রবার সকালে ইমন তার মায়ের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে নিজের কর্মস্থলে যান। দুপুর ১২টার দিকে বড় একটি ক্যারন মেশিনে উঠে বহুতল ভবনের কাজ দেখছিলেন তিনি। এ সময় ভবনের ওপর থেকে লোহার একটি অংশ তার মাথায় পড়লে অচেতন হয়ে পড়েন। পরে কোম্পানি লোকজন তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ইমনের মৃত্যুর খবরটি তার বাড়িতে পৌঁছায়। এ সময় কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা। ছেলেকে হারানোর শোকে মুর্চ্ছা যাচ্ছেন ইমনের মা। ইমনের লাশ দেশে আনতে বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা।