অনুপ্রবেশের অভিযোগে দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের দেশ উত্তর মেসিডোনিয়াতে ২০ বাংলাদেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীকে আটক করা হয়েছে।

উত্তর মেসিডোনিয়ার স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে দেশটির বিভিন্ন গণামধ্যম।

পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়, শনিবার নিয়মিত টহলের সময় একটি ভ্যান থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। সার্বিয়ার সঙ্গে দেশটির সীমান্তের কাছাকাছি একটি মহাসড়ক থেকে তাদের আটক করা হয়।
এদের মধ্যে নয় জনের বয়স আঠারো বছরের নিচে। তাদেরকে বহন করা ভ্যান ড্রাইভার ছিলেন একজন উত্তর মেসিডোনিয়ান; যার বয়স অনুমানিক ৪৪ বছর। বর্তমানে তাকে পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার উত্তর মেসিডোনিয়া ও স্লোভেনিয়ার পুলিশের যৌথ প্রচেষ্টায় গ্রিস এবং মেসিডোনিয়ার সীমান্তবর্তী হাইওয়ে থেকে আরও ৫৯ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে আটক করা হয়, যাদের মধ্যে ৪৩ জন ছিলেন পাকিস্তানের নাগরিক।

এছাড়াও আটক হওয়া এ ৫৯ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীদের মাঝে ১৩ জন ছিলেন ইরিত্রিয়ার নাগরিক এবং তিন জন ছিলেন মালির নাগরিক। পাশাপাশি মানবপাচারের অভিযোগে ৩৩ এবং ৩৭ বছর বয়সী দুই সার্বিয়ান নাগরিককে আটক করে উত্তর মেসিডোনিয়ার পুলিশ প্রশাসন।

বর্তমানে আটক হওয়া এ সকল অভিবাসনপ্রত্যাশীকে দেশটির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর জেভজেলিয়াতে রাখা হয়েছে।

উত্তর মেসিডোনিয়ার পুলিশ বলছে, তারা সবাই বলকান উপদ্বীপের সবচেয়ে দক্ষিণের দেশ গ্রিস থেকে নর্থ মেসিডোনিয়াতে প্রবেশ করেছিলেন। তাই খুব শীঘ্রই তাদেরকে গ্রিসে ফেরত পাঠানো হবে বলে দেশটির পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

অবৈধভাবে ইতালি, ফ্রান্স, স্পেন ও পর্তুগালসহ সেনজেনভুক্ত বিভিন্ন দেশে অবৈধ অনুপ্রবেশের জন্য বর্তমানে বলকানের এ রুটটি ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছে।

গত কয়েক বছর ধরে তাই তুরস্ক ও গ্রিস থেকে ইতালি, ফ্রান্স, স্পেন ও পর্তুগালের মতো সেনজেনভুক্ত দেশগুলোতে অনুপ্রবেশের লক্ষে উত্তর মেসিডোনিয়া, সার্বিয়া, মন্টিনিগ্রো ও বসনিয়া অ্যান্ড হার্জেগোভিনার মতো বলকান পেনিসুলার দেশগুলোকে অনেক অভিবাসনপ্রত্যাশী ট্রানজিট পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করছেন।