বিএনপি দেশের রাজনীতিতে থাকা না থাকা নিয়ে জনগণের কোনো আগ্রহ নেই- এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘তারা এখন জনআস্থার তীব্র সংকটে ভুগছে। আমরা চাই, বিএনপি থাকুক তবে অপরাজনীতি ত্যাগ করে দায়িত্বশীল বিরোধীদলের ভূমিকা পালন ও সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা করুক।’

বুধবার (২ জুন) সকালে তার সরকারি বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘বিএনপি আছে তবে ভিন্ন কায়দায়, তাইতো জনগণ মনে করে বিএনপি আছে বলে ষড়যন্ত্র ও আন্দোলনের নামে আগুন সন্ত্রাসও আছে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে বিএনপি নেতাদের বক্তব্য তুলে ধরে তিনি বলেন, এসব বক্তব্য তাদের চলমান ভাঙা রেকর্ড যা তারা বাজিয়েই চলেছে। প্রতিহিংসা নয়, সরকার উদার বলেই খালেদা জিয়া এখন পছন্দের ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা নিতে পারছেন।

সরকারের পায়ের নিচে মাটি নেই, সরকার গণবিচ্ছিন্ন- বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিচ্ছিন্নতার মাপকাঠি কী? নির্বাচনই যদি মাপকাঠি হয় তাহলে সাম্প্রতিক নির্বাচন, উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনসহ অন্যান্য প্রায় সব নির্বাচনে প্রমাণ হয়েছে জনগণ কার সঙ্গে আছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার উন্নয়ন এবং ভবিষ্যতমুখী রাজনীতি বিএনপির ষড়যন্ত্র ও উন্নয়নবিমুখ রাজনীতিতে সংকটের প্রকট ছায়া ফেলেছে। তাই বিএনপি এখন হতশ্রী ও জনবিচ্ছিন্ন রাজনৈতিক দল।

দেশের অর্থনীতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নশীল অর্থনীতির মর্যাদায় অভিষিক্ত এ কথা উল্লেখ করে কাদের বলেন, বিএনপি এখনও হাওয়া ভবনের কালো চশমা পরে আছে বলে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ দেখতে পায় না। দেখলেও তা সহ্য হয় না বিএনপির।