মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় আগামী ১২ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত লকডাউন আরোপ করেছে মালয়েশিয়ার সরকার। ফলে পরিবারের জন্য টাকা পাঠাতে পারলেও সকল প্রবাসীকে এবারও ঈদ করতে হবে ঘরে থেকেই। কারণ এ বছরও কোথাও অনুষ্ঠিত হবে না বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে বড় কোন ঈদ জামাত। মসজিদগুলোতেও ঈদ জামাতে ২০ জনের বেশি উপস্থিত থাকার অনুমোদন নেই। তাই এবারও মালয়েশিয়ায় প্রবাসীরাসহ মালয়েশিয়ানদের পালিত হবে উৎসববিহীন ঈদ।

গত বছরেও দুটি ঈদে খুশি বা আনন্দ’র একটুও রেশ লাগেনি মালয়েশিয়া প্রবাসী কয়েক লাখ বাংলাদেশির মনে। মালয়েশিয়ায় ঈদের সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হতো বাংলাদেশিদের অংশগ্রহণে মালয়েশিয়ার বিভিন্ন প্রদেশে। কিন্তু গত বছর করোনার কারণে সরাকারি নিষেধাজ্ঞায় তা সম্ভব হয়নি। কয়েক হাজার বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের মাথায় উঠেছিল হাত। এবারও করোনার কারণে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে মালয়েশিয়া থেকে গত বছর ছুটিতে দেশে যাওয়া প্রবাসীদের। তারা স্ব স্ব কর্মস্থলে ফিরতে পারবেন কী না তাও অনিশ্চিত। অনেকে প্রবাসে কাটাচ্ছেন কর্মহীন অবস্থায় আর দিন গুণছেন সুদিনের প্রত্যাশায়।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বর্তমান সংক্রমণ পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। লকডাউনের মধ্যে অর্থনীতি সচল রাখতে অর্থনৈতিক ও উৎপাদন খাতগুলো যথারীতি খোলা থাকছে। আন্তঃজেলায় যাতায়াত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, রমজানের বাজার, রেস্টুরেন্ট ও সভা সমাবেশ বন্ধ থাকবে। শর্তসাপেক্ষে বিয়ের অনুষ্ঠান, ঈদের নামাজ, মসজিদ ও উপাসনালয়গুলো বেঁধে দেওয়া সীমিত সংখ্যকের উপস্থিতিতে পরিচালিত হতে পারে। অফিস ও প্রাইভেট সেক্টরে ৩০ শতাংশ স্টাফ কাজ করতে পারবে বাকিরা বাসায় অফিসের কাজ করতে হবে।