কানাডার ভ্যাঙ্কুভার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দিনদুপুরে সবার সামনে এক যুবককে (২৮) গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। গুলি ছোড়ার পর সন্দেহভাজন বন্দুকধারী অন্যদের সঙ্গে একটি গাড়িতে করে পালিয়ে যান। পালিয়ে যাওয়ার সময় তারা পুলিশের দিকেও গুলি ছোড়েন।

ঘটনার পর কিছুক্ষণের জন্য ভ্যাঙ্কুভার বিমানবন্দর বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে সেটি খুলে দেওয়া হয়। পুলিশ ধারণা করছে, দুই ‘গ্যাংয়ের’ মধ্যে বিরোধের জেরে ওই যুবককে হত্যা করা হয়েছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ঘটনাস্থলের ছবিতে পুলিশের একটি গাড়ির উইন্ডস্ক্রিনে গুলি লেগে গর্ত হয়ে যেতে দেখা গেছে। গাড়ির একটি জানালাতেও গুলি লাগে।

এক বা একাধিক সন্দেহভাজনকে খুঁজছে পুলিশ। স্থানীয় দৈনিক ভ্যাঙ্কুভার সান জানায়, রবিবার স্থানীয় সময় বিকাল ৩টার দিকে বহির্গমন টার্মিনালের বাইরে এ ঘটনা ঘটে। গুলির শব্দ শুনে সেখানে থাকা আতঙ্কিত লোকজন নিরাপদ আশ্রয়ের আশায় দৌড়াতে শুরু করেন।
পুলিশ ওই সময় একটি ‘এসইউভি’ গাড়ির পথরোধ করেছিল। কিন্তু পুলিশের গাড়ির দিকে গুলি ছুড়ে সেটি পালিয়ে যায়। ব্যস্ত সড়ক হওয়ায় পাল্টা গুলি ছুড়ে সেটিকে থামানোর চেষ্টা করা হয়নি বলে জানায় পুলিশ।

বিমানবন্দরে গোলাগুলির পর প্রায় ২৮ কিলোমিটার দূরে পুলিশ একটি পোড়া গাড়ি খুঁজে পায়। পুলিশের ধারণা, সন্দেহভাজন সেই গাড়িতেই পালিয়ে গিয়েছিল এবং প্রমাণ নষ্ট করতে সেটি পুড়িয়ে দেয়।