সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিল করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচার দল মালয়েশিয়া শাখা।

প্রচার দল মালয়েশিয়া শাখার আহ্বায়ক রমজান আলির সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব হাসিবুর রহমান শান্ত’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের সার্বিক তত্ত্বাবধায়ন ও সহযোগীতায় ছিলেন দলটির কেন্দ্রীয় যুগ্নসাধারণ সম্পাদক, সাবেক ছাত্রনেতা ওয়াকিদুজ্জামান ডাবলু।

রাজধানী কুয়ালালামপুরের পাঁচ তারকা হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের গ্রান্ড বলরুমের এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে ঢাকা থেকে ভিডিও কলের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও প্রধান আলোচক বিএনপির যুগ্নমহাসচিব, প্রচার দলের উপদেষ্ঠা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে যখন আমরা উৎসব করবো সেই সময় স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে স্বাধীনতার ঘোষক জিয়ার স্ত্রী-সন্তানেরা কারারুদ্ধ হন। আর পঞ্চাশ বছর পর সেই বাংলাদেশেই বেগম জিয়াকে মিথ্যা অভিযোগে, অন্যায়ভাবে কারারুদ্ধ করা হয়েছে এবং সেই অবস্থায় তিনি মারাত্মক জটিল রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য-ই নয় বরং আমাদের অযোগ্যতা, অক্ষমতা, ব্যার্থতা। সরকার করোনা মহামারির মধ্যে সাহায্যের নামে রসিকতা করছে বলে অভিযোগ করেন বর্ষীয়ান এ নেতা।

বর্তমান সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, সরকারের মধ্যে জনগনের প্রতি দায়বদ্ধতা নেই, নেই সহানুভুতি, মানবতাবোধ এজন্য তারা দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মতো মহিয়সী নারীকে কারারুদ্ধ করে রেখেছেন।
প্রধান আলোচক মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ নয় বিবর্ণ জয়ন্তী এটা। প্রিয় নেত্রীর উপর সরকারের দপন-পীড়নের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে সরকার ভয় পায় এজন্যই তাকে অন্যায়ভাবে কারাবন্দি করে রাখা হয়েছে।

জাতীয়তাবাদি প্রচার দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাহফুজ কবির ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আকবর হোসেনের শুভেচ্ছা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক, প্রচার দলের উপদেষ্টা এড. শিরিন সুলতানা, ঢাকা মহানগর (উত্তর) বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ রবিউল আলম, জনতার মেয়র ও আন্তর্জাতিক উপকমিটির সদস্য প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী সদস্য মির্জা খোকন, মালয়েশিয়া বিএনপির সভাপতি ও এশিয়া-প্যাসিফিক সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন সমন্বয় কমিটির যুগ্ন-আহ্বায়ক প্রকৌশলী বাদলুর রহমান খান, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মালয়েশিয়া বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মোশাররফ হোসেন, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহসভাপতি ও ঢাকা মহানগর উত্তর যুবদল সভাপতি এস এম জাহাঙ্গীর এবং কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রচার দলের উপদেষ্টা ইয়াছিন আলি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসাবে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্নমহাসচিব খায়রুল কবির খোকন ও চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব।

এছাড়া কুয়ালালামপুরের এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মালয়েশিয়া বিএনপির সহ-সভাপতি তালহা মাহমুদ, আব্দুল জলিল লিটন, এস এম রহমান তনু, যুগ্নসাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল্লাহ জাহিদ, কাজী সালাহউদ্দিন, মোয়াজ্জেম হোসেন নিপু, আব্দুল্লাহ আল মামুন লিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা সালাহউদ্দিন, সহদপ্তর সম্পাদক হাবিবুর রহমান শিশির, যুবদল সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম খান, সিনিয়র সহসভাপতি মঞ্জু খাঁ, যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মুজাহিদুল ইসলাম মুরাদ, বাদল কারার, যুবনেতা জসীম উদ্দিন, মালয়েশিয়া স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি হাবিবুর রহমান রতন তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক এস এম বশির আলম, প্রচার দলের যুগ্নআহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম সোহাগ, হাবিবুর রহমান চুন্নু, তুহিন শেখ, প্রচার দলের শীর্ষ নেত্রী সালমা আক্তার স্বপ্নাসহ অনেকে।