স্বাধীনতার সূর্য সন্তানেরা বাঙালির গৌরব, বাংলাদেশের গৌরব। তাদেরকে অভিবাদন জানানোর মধ্যেই বাংলাদেশের প্রতি স্যালুট জানানো। স্বাধীনতার এই সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে যেসব মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন, তাদেরকে পরম শ্রদ্ধা ও অভিবাদন।

এমন উচ্চারণ করলেন পেনসিলভেনিয়া স্টেটেই শুধু নন, সারা মার্কিন মুল্লুকে বাঙালির উত্থানের প্রতীক, খেটে খাওয়া মানুষের অকৃত্রিম বন্ধু, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অধিকার-মর্যাদার প্রশ্নে আপসহীন ব্যক্তিত্ব বিজ্ঞানী-রাজনীতিক-কমিউনিটি লিডার ড. নীনা আহমেদ।

১২ এপ্রিল ফিলাডেলফিয়া সিটির ‘ক্র্যান কমিউনিটি সেন্টারে’ স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত পরিপাটি এ সমাবেশে মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন তিন জন। এরা হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. জিয়াউদ্দিন আহমেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক লাবলু আনসার এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক রাশেদ আহমেদ।
বিপুল করতালির মধ্যে তাদেরকে বিশেষভাবে পরিচয় করিয়ে দেয়ার সময় অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম শহীদুল ইসলামও গভীর শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন মুক্তিযোদ্ধাগণের প্রতি। এরপরই স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে একটি করে প্যাকেট প্রদান করেন তিন মুক্তিযোদ্ধাকে। আর এভাবেই একাত্তরের ৩০ লাখ শহীদ এবং সম্ভ্রম হারানো দু’লাখ মা-বোনের প্রতিও শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পিত হয় পুরো সমাবেশের পক্ষ থেকে।

এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন ফিলাডেলফিয়াবাসীকে সাথে নিয়ে ড. নীনা আহমেদ। অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন কংগ্রেসওম্যান ম্যারি গে স্যানিয়ন, কংগ্রেসম্যান ডুইট ইভান্সসহ পেনসিলভেনিয়া স্টেটে বিভিন্ন সিটি কাউন্সিলে নির্বাচিত বাংলাদেশী-আমেরিকানরা। কমিউনিটির বিশিষ্টজনদের মধ্যে ছিলেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সেক্রেটারি আব্দুল কাদের মিয়া, যুক্তরাষ্ট্র সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের কোষাধ্যক্ষ ও বিশ্ববাংলা টোয়েন্টিফোর টিভির চেয়ারম্যান আলিম খান আকাশ প্রমুখ।