বাংলাদেশের উদ্যমী এবং মেধাবিদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসি সংলগ্ন ভার্জিনিয়ায় ‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’র উদ্বোধন করা হয়েছে। এই প্রথম কোনো বাংলাদেশি আমেরিকানের মালিকানায় পূর্ণাঙ্গ একটি ইউনিভার্সিটি চালু হলো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এ মোমেন বলেন, ‘বহুজাতিক এ সমাজে প্রবাসীদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। বাংলাদেশের উদ্যমী এবং মেধাবিদের দক্ষ করে তুলবে, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে উচ্চ বেতনে চাকরির পথ সুগম করবে।’

বাংলাদেশি প্রকৌশলী আবুবকর হানিপের মালিকানাধীন ‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’ ২৭ ফেব্রুয়ারি উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম শহীদুল ইসলাম, সামিট গ্রুপর ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদ খান, ভয়েস অব আমেরিকার বাংলা বিভাগের প্রধান রোকেয়া হায়দার। ভিডিওতে শুভেচ্ছা জানান বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের ড. সাজ্জাদ হোসেন, জর্জিয়া স্টেট সিনেটর শেখ রহমান এবং প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার উপদেষ্টা ড. নীনা আহমেদ।

‘ইনোভেটিভ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটি’র চ্যান্সেলর এবং সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ বলেন, ‘এখানে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সঙ্গে কারিগরি শিক্ষা দেওয়া হবে শিক্ষার্থীদের, যাতে গ্র্যাজুয়েশনের সাথে সাথেই চাকরি পান।’

ইঞ্জিনিয়ার হানিপ উল্লেখ করেন, ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এই ইউনিভার্সিটি তথ্য-প্রযুক্তি, ব্যবসা-প্রশাসন, প্রজেক্ট এবং হেল্থ কেয়ার ম্যানেজমেন্টে যথেষ্ঠ সুনাম কুড়িয়েছে। চলতি বছর এর মালিকানাসহ সামগ্রিক ব্যবস্থায় আমরা এসেছি। তাই বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা যাতে অবাধে ভর্তির সুযোগ পান সে চেষ্টা থাকবে। বাংলাদেশ থেকে আসা ছাত্র-ছাত্রীরা এর একটি ব্যাচেলর এবং আরেকটি মাস্টার্স কোর্সের জন্য পাবেন। অর্থাৎ পুরো কোর্সের ৭৫% বৃত্তি দেয়া হবে। এর বাইরেও রয়েছে আরও দুই লাখ ডলারের স্কলারশিপ বাংলাদেশ থেকে আসা ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য।

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রে ১৫ লাখের অধিক বাংলাদেশি থাকেন। অনেকেই বিভিন্ন কর্পোরেশনের মালিক, শীর্ষ কর্মকর্তা, ভাইস চ্যান্সেলরও রয়েছেন কয়েকজন।