করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসার খবরে যুক্তরাষ্ট্রে টয়লেট পেপারের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে টয়লেট পেপার ও পরিষ্কার সামগ্রী কেনার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন জনগণ।

গত ১৯ নভেম্বর ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর সেখানে কারফিউ জারি করেন। এরপরই সেখানে টয়লেট পেপার কেনার হিড়িক শুরু হয়। ফ্রেসনো, কস্টকো, ওয়ালমার্ট ও বিজেএস স্টোরে টয়লেট পেপার প্রায় শেষ হয়ে গেছে।

করোনা সংক্রমণ আবারও বাড়ছে যুক্তরাষ্ট্রে। একই সঙ্গে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। এ কারণে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে নতুন করে কারফিউ ও লকডাউন জারি করছে কর্তৃপক্ষ।

এদিকে শুক্রবার বিকালে দেশটির ২২টি অঙ্গরাজ্যে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। সংক্রমণ রোধ করতেই এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। এ কারণে বিভিন্ন শপ ও দোকান থেকে লোকজন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে জমা করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কিছু শহরের ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, ওয়ালমার্ট, কস্টকো কস্ট ও বিভিন্ন ধরনের জীবাণুনাশকের ওপর মূল্যছাড় দিয়েছে।

অ্যারিজোনার টুকসনের ৩১ বছর বয়সী হুইটলি হ্যাচার নামের এক কর্মকর্তা বলেন, ওয়ালমার্টে লাইজল জীবাণুনাশক ও টয়লেট পেপার আবারও শেষ হয়ে গেছে। বড় বড় স্টোরগুলোতে লোকজন জিনিসপত্রের খালি শেলফ দেখে আতঙ্কিত হচ্ছেন। এ কারণে তারা আরও বেশি করে জিনিসপত্র কিনছেন।