বিশ্বজুড়ে সবার জন্য কভিড-১৯ এর ভ্যাকসিন নিশ্চিতে কোভ্যাক্স জোটে এখন পর্যন্ত বিশ্বের ১৮৪টি দেশ ও অর্থনৈতিক জোট যোগ দিয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা- ডব্লিউএইচও’র প্রধান তেদ্রোস আধানম গাব্রিয়েসাস।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন পাওয়া গেলে সেটা যাতে ধনী দেশগুলোর পাশাপাশি গরিব দেশগুলোর জন্যও নিশ্চিত করা যায় সে লক্ষ্যে জাতিসংঘের নেতৃত্বে গঠন করা হয় কোভ্যাক্স জোট।

এ ব্যাপারে সোমবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও প্রধান বলেন, “সম্ভাব্য কভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলোর জন্য কোভ্যাক্স সবচেয়ে বড় বিনিয়োগের তালিকা। নিরাপদ ও কার্যকর ভ্যাকসিন সমানভাবে বিশ্বজুড়ে বণ্টনের জন্য একটি কার্যকর উপায়।”

“উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা জনসাধারণকে রক্ষা, স্বাস্থ্য অবকাঠামোকে স্থিতিশীল করা এবং সত্যিকার অর্থে বিশ্ব অর্থনীতিকে উদ্ধার করার দ্রুততর উপায় হলো যথাযথভাবে ভ্যাকসিন ভাগ করে নেওয়া।”

কোভ্যাক্স জোটে যোগ দেওয়া দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো চীন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সবার সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। এই উদ্যোগের প্রতিশ্রুতি হলো কভিড-১৯ এর ভ্যাকসিনগুলোকে বৈশ্বিক পণ্যে পরিণত করা।

নতুন করে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আধানম জানান, উত্তর গোলার্ধে আসছে শীত খুব ভয়াবহ হতে পারে। এই সময়ে ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় কভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার ইঙ্গিত দেন তিনি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত কভিড-১৯ এর ১৯৮টি ভ্যাকসিন নিয়ে গবেষণা চলছে। এর মধ্যে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে আছে ৪৪টি ভ্যাকসিন।

গত বছর চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৪ কোটি। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১১ লাখ ২৩ হাজার মানুষের। এর মধ্যে এই ভাইরাস রুখতে রাশিয়া একটি ভ্যাকসিন আবিস্কারের ঘোষণা দিলেও সেটির কার্যকারিতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেকে।