বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) দুজন সিবিএ (কালেকটিভ বার্গেনিং এজেন্ট) নেতার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক মো. খলিলুর রহমান সিকদার আদালতে এ চার্জশিট দাখিল করেন। এরপর ঢাকার সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ চার্জশিট দেখে তা আমলে নেয়ার জন্য আগামী ৬ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

সিবিএর এই দুই নেতা হলেন- সভাপতি জহিরুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন মিয়া। বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অডিট পরিদফতরের সহকারী হিসাব রক্ষক (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) ছিলেন জহিরুল ইসলাম চৌধুরী এবং ডিজাইন অ্যান্ড ইন্সপেকশন পরিদফতর-১ এর সাবেক স্টেনো টাইপিস্ট কাম কম্পিউটার অপারেটর ছিলেন মো. আলাউদ্দিন মিয়া।

চার্জশিটে বলা হয়, তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী হওয়া সত্বেও নিজেদেরকে ‘ভিআইপি’ হিসেবে দাবি করে অবৈধ ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে দুটি পাজেরো গাড়ি ২০১০ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার জন্য ব্যবহার করেন তারা। গাড়ির জ্বালানি, মেরামত ও সংরক্ষণ বাবদ তারা সরকারি মোট এক কোটি ১৫ লাখ ৬৩ হাজার ২৭ টাকা ক্ষতিসাধনপূর্বক আত্মসাৎ করেন। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নীতিমালা অনুযায়ী, গাড়ি ব্যবহারের প্রাধিকারপ্রাপ্ত ব্যক্তি ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তিকে গাড়ি দেয়া যাবে না মর্মে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। এক্ষেত্রে জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নামে পাজেরো গাড়ি দুটির সরকারি বরাদ্দের কোনো পত্র পাওয়া যায়নি।

২০১৯ সালের ১৭ জুলাই দুদকের সহকারী পরিচালক মো. খলিলুর রহমান সিকদার বাদী হয়ে কমিশনের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে (ঢাকা-১) মামলাটি করেন। তদন্ত শেষে একই কর্মকর্তা আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশিটে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও ক্রোকী পরোয়ানা জারির আবেদন করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জশিটে ১০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে।