অভিবাসীদের প্রতি মালয়েশিয়ান সরকারের ‘অবিচারের’ প্রতিবাদ করে দেশটিতে রীতিমতো ‘ঝড়’ তুলে দেয়া রায়হান কবিরকে শুক্রবার রাতে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে।

কাতার-ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরায় ‘‘লকড আপ ইন মালয়েশিয়া’স লকডাউন’’ শিরোনামের একটি প্রামাণ্যচিত্রে কথা বলে বিপদে পড়েন নারায়ণগঞ্জের এই যুবক। গ্রেপ্তারের পর দুই দফায় তাকে রিমান্ডে নেয়া হয়।

ফ্রি মালয়েশিয়া টুডে (এফএমটি) শুক্রবার তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, কুয়ালালামপুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে তাকে ফ্লাইটে তুলে দেয়া হবে।

দেশটির অভিবাসন বিভাগের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ সময় রাত সাতটায় তাকে বিমানবন্দরে নেয়া হবে।

এর আগে গত বুধবার রায়হানের আইনজীবীরা জানান, তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ গঠন করা হয়নি।

৩ জুলাই আল-জাজিরায় প্রচারিত ওই প্রামাণ্যচিত্রে শুধু বাংলাদেশ নয়, আরো কয়েকটি দেশের অভিবাসীরা নিজেদের সমস্যার কথা তুলে ধরেন। প্রায় ২৬ মিনিটের ভিডিওটিতে সাড়ে পাঁচ মিনিটের দিকে রায়হান কবিরকে দেখা যায়।

উপস্থাপককে নিজের মোবাইলে একটি ভিডিও দেখান তিনি। সেই ভিডিওতে মালয়েশিয়ান প্রশাসনের কিছু পদক্ষেপের দৃশ্য ছিল। দেখা গেছে, ৬০০ মানুষকে তারা ট্রাকে করে অন্য কোথাও নিয়ে যাচ্ছেন।

রায়হানের অভিযোগ, ‘তারা আমাদের ফাঁদে ফেলেছে। ওষুধ, খাবারসহ সবকিছু দিয়েছে। কিন্তু কেউই বুঝতে পারেনি গ্রেপ্তার করা হবে। তারা খুনি নয়, সন্ত্রাসী নয়। শুধু কাগজপত্রহীন অভিবাসী।’

রায়হানের অবশ্য কাগজপত্রের কোনো সমস্যা ছিল না। কিন্তু প্রামাণ্যচিত্র প্রচারের পর তার পারমিট বাতিল করা হয়। তার বিরুদ্ধে ‘মালয়েশিয়ার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার’ অভিযোগ আনা হয়। এরপর সন্ধান চেয়ে ৬ ‍জুলাই নোটিশ জারি করে সেখানকার পুলিশ। গ্রেপ্তার করা হয় ২৪ জুলাই।

Previous post আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন
Next post ২১ আগস্টের ঘটনা ছিল জাতীয়তাবাদী নেতৃত্বকে কবর দেওয়া : গয়েশ্বর
Close