জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে ভিয়েনায় এক শোক সভার আয়োজন করা হয়। অষ্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার পেটার জরডানটাসে ৫০ এ অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের নিজস্ব ভবনের আঙ্গিনায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

১৫ আগস্ট শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় অনুষ্ঠিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত, সঞ্চালনা করেন প্রথম সচিব ও চ্যান্সারী প্রধান মো: তারাজুল ইসলাম।

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ এবং ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্র্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কর্তৃক প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।
রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন মিশনের উপ-প্রধান রাহাত বিন জামান, প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের কাউন্সেলর মিস মালিহা শাহজাহান, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের নিউক্লিয়ার এটাশে ড. শামসুজ্জামান ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের প্রথম সচিব ও চ্যান্সারী প্রধান মো: তারাজুল ইসলাম।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি, অস্ট্রিয়া প্রবাসী লেখক, মানবাধিকারকর্মী ও সাংবাদিক এম. নজরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ অষ্ট্রিয়া ইউনিট কমান্ডের কমান্ডার বায়েজিদ মীর, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির, জাতিসংঘের ভিয়েনা দপ্তরের সাবকে কর্মকর্তা ড. শহদি হোসেন, মিনহাজুর রহমান,
অস্ট্রিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভানেত্রী নাহীদ সুলতানা নাসরিন, অষ্ট্রিয়া আওয়ামী লীগ নেতা আকতার হোসেন, আহমেদ ফিরোজ, রুহী দাস সাহা, মনোয়ার পারভেজ, নয়ন হোসেন, ইরুল কয়েস, রবিন মো: আলী, জান্নাতুল ফরহাদ প্রমুখ।

সভার শেষে ‘৭৫-এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুসহ নিহত সকল শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ড. ফারুক আল মাদানী।