বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও জোর প্রস্তুতির মধ্য দিয়ে আগামী ২১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কানাডার ৪৩ তম সাধারণ নির্বাচনের। বিভিন্ন দেশের প্রার্থীদের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রবাসী বাঙালিরাও।

আয়তনের দিক থেকে কানাডা ৯ হাজার ৯শত ৮৫ মিলিয়ন কিলোমিটার হলেও জনসংখ্যা মাত্র ৩৭ মিলিয়ন। যার রয়েছে ১০ টি প্রভিন্স এবং ৩ টি টেরিটরিজ। মাল্টিকালচারজমের দেশ হিসাবে পরিচিত কানাডার “হাউজ অব কমন্স” সংসদের মোট আসন সংখ্যা ৩৩৮ টি। এককভাবে কোন সরকার গঠন করলে প্রয়োজন ১৭২ টি আসনের। কানাডার ৪৩ তম সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে সর্বমোট ৬ টি দল। এর মধ্যে লিবারেল পার্টি, কনজারভেটিভ পার্টি, নিউ ডেমোক্রেটিক পার্টি, ব্লক কুবেকুয়া পার্টি, গ্রীন পার্টি এবং পিপলস পার্টি অফ কানাডা।  ইতিমধ্যেই সারা কানাডাতে অগ্রিম ভোট শুরু হয়েছে। সম্প্রতি এক জরিপে দেখা গেছে, বর্তমান ক্ষমতাসীন দল লিবারেল পার্টি ও কনজারভেটিভ পার্টি ভোটের দিক থেকে খুব কাছাকাছি অবস্থান করছেন।

লিবারেল পার্টি অফ কানাডার এমপি প্রার্থী জগদিশ আনান্দ জানালেন, দলমত নির্বিশেষে আমরা সবার হয়ে কাজ করতে চাই, আর এ লক্ষ্যেই কাজ করে চলেছি।

নিউ ডেমোক্রেটিক পার্টির এমপি প্রার্থী খালিস আহমেদ জানালেন, জলবায়ু পরিবর্তনে উদ্বাস্তুদের অভিবাসনে আমরা সবার সাথে একাত্ম হয়ে কাজ করব।

লেবার পার্টি অফ কানাডার এমপি প্রার্থী আফরোজা হোসেন জানালেন, বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি সংখ্যক অভিবাসী কীভাবে নিয়ে আসা যায় সেই লক্ষ্যে কাজ করবো।

ইতিমধ্যে বিভিন্ন দলের প্রার্থীরা বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভোটারদের কাছে ভোট চাচ্ছেন। রাস্তাঘাটে ছেয়ে গেছে প্রার্থীদের পোস্টারে পোস্টারে। অফিস-আদালত, রেস্টুরেন্ট সর্বত্রই এখন প্রধান আলাপ-আলোচনা কানাডার সাধারণ নির্বাচন নিয়ে। প্রবাসী বাঙালিরাও যোগ দিয়েছে বিভিন্ন ডিবেটে। তুলে ধরছেন নিজেদের অবস্থানের কথা।