গত ২৭ ও ২৮ জুলাই ২০১৯ উদযাপিত হলো দুই দিন ব্যাপী লস এঞ্জেলেসের মেগা বিনোদন আসর আনন্দ মেলা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসবে উপস্থিত ছিলেন, সিটি কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট হারব ডে ওয়েসন জুনিয়র, বিশেষ অতিথি কন্সাল জেনারেল প্রিয়তোষ সাহা এবং আনন্দ মেলা প্রেসিডেন্ট মোয়াজ্জেম হোসেন।
এ আনন্দ মেলা আয়োজন করে বাংলাদেশী আমেরিকান এসোসিয়েশন অব লস এঞ্জেলেস। দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ছিলেন স্বনামধন্য উপস্থাপক মিঠুন চৌধুরী ও রৌসনি আলম। প্রথম দিনে সঙ্গীত পরিবেশন করেন- পুর্নতা, রিদ্দি মজুম দার, তাবাসুম, শায়েলা রুমী, কেয়া, অমিত এবং শাহ মাহাবুবও এম এ শোয়েব।
নৃত্যে ছিলেন, ঈপশিতা বড়ুয়া, রীমপী গুনগুন ও প্রিয়াঙ্কা।
দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশনায় ছিলেন- তাসনিন, তাসিন নাহিদ, সাজ চৌধুরী, সামীরান, প্রিয়া ডায়াস, আসমী কুন্ডু, দ্বৈত্ব- নায়ক ইমন ও পায়েল, টনি ও প্রিয়া ডায়েস। সঙ্গীত পরিবেশন করেন, উপমা সাহা, শ্যামল পাল, অঞ্জলী চৌধুরী, অহনা ডায়াস, গল্প, রনি, ইমন সাহা (সঙ্গীত পরিচালক), মাহফুজা মমো এবং নায়ক আরেফিন শুভ।
বিশেষ আকর্ষণ ছিল- ব্যাতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান মাইম আইকন কাজী মশহুরুল হুদার মূকাভিনয় এবং কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনির কৌতুক।
আনন্দ মেলার সমাপ্তিতে উপস্থিত ছিলেন- কংগ্রেস ওমেন জুডি চু। এ বছর বিশেষ স্পন্সর ছিল জেসমিন খান ফাউন্ডেশনের পক্ষে দুজন কৃতি ছাত্র/ছাত্রীকে স্টুডেন্ট অব দ্যা ইয়ার। তাদের মধ্যে এমিলিন পুনম আহমেদ (মরহুম আশরাফ মিলনের কন্যা) এবং তাসফিয়া নাওয়াল রাসিদ।


এছাড়া আনন্দ মেলার পক্ষ থেকে এ বছর সম্মাননা প্রদান করা হয় ডা: আবুল হাসেম, আবুল ইব্রাহিম এবং প্রথমবারের মত দম্পত্তি এওয়ার্ড পায় মারুফ ও জেরিন।
তরুণ কমিউনিটি সংগঠক মোহম্মদ খানের নেতৃত্বে এক ঝাক তরুণ সহযোদ্ধার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সফল প্রযোজনা ছিল আনন্দ মেলা লস এঞ্জেলেস।
সাংস্কৃতিক পরিচালক রুপম অধিকারীর হস্তক্ষেপে অনুষ্ঠান পরিচালনায় সর্বদাই ছিল গতিময় ও উন্নতমানের। উপস্হাপনার মাধ্যমে ধারাকে ধরে রেখেছিল মিঠুন চৌধুরী ও রৌশনী আলম।
সার্বিক নিয়ম শৃংখলা ছিল পরিকল্পিত, যার জন্য সুশৃঙ্খলভাবে সকলেই উপভোগ করে সমগ্র অনুষ্ঠান। উল্লেখ যে, অনুষ্ঠানের শুরুতে সাইফুল চৌধুরী শাহেদ খান ডুলিকে সাথে নিয়ে আনন্দ মেলার পক্ষ থেকে উপস্থিত দর্শকদের শুভেচ্ছা জানায়। এছাড়া, ইয়াং একটিভিস্ট হিসাবে আনন্দ মেলা এওয়াড পায় আব্দুস সামাদ।
এবারের আনন্দ মেলা উৎসর্গ করা হয়েছে মরহুম আশরাফ আহম্মেদ মিলনের প্রতি।