ড. নীনা আহমেদ পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের লেফট্যানেন্ট গভর্নর পদে লড়াইয়ের ঘোষণা দিয়েছেন। সম্প্রতি এক বিবৃতিতে ড. নীনা বলেছেন, দীর্ঘ সময় ধরেই হ্যারিসবার্গ (পেনসিলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের রাজধানী) পুরুষ শাসিত। আমি এতে পরিবর্তনের সূচনা ঘটাতে চাই। এখানে যৌনতা এবং যৌন হয়রানির যেসব অভিযোগ উঠেছে তা নির্মূল করতে চাই। কারণ, এ ধরনের জঘন্য ঘটনা আমাদেরকে পিছনে টেনে ধরছে।

ডেপুটি গভর্নর পদে দলীয় মনোনয়নের যোগ্যতা অর্জনের জন্যে ড. নীনা আহমেদকে সামনের সপ্তাহের মধ্যে এক হাজার ভোটারের স্বাক্ষর সংগ্রহ করতে হবে।

এর আগে ফিলাডেলফিয়া সিটিসহ আশপাশের এলাকা নিয়ে গঠিত (পুরনো) কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্ট পিএ-১ থেকে ডেমক্রেটিক পার্টির মনোনয়নের দৌড়ে অবতীর্ণ হয়েছিলেন বাংলাদেশি-আমেরিকান বিজ্ঞানী ও সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার এশিয়ান বিষয়ক উপদেষ্টা ড. নীনা। তার সেই নির্বাচনী তহবিল সংগ্রহের জন্যে প্রবাসী বাংলাদেশিরাও মাঠে রয়েছেন। এখন সেই তহবিল পরিবর্তিত হবে ‘লে. গভর্নর’ হিসেবে।

ড. নীনা তার সমর্থকদের প্রতি উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন আগের উদ্যমেই সহযোগিতার মনোভাব অব্যাহত রাখতে।

‘দীর্ঘ ৩০ বছর যাবত তৃণমূলের সমাজকর্মী ড. নীনার বিজয় ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব হতো না’-এমন আশংকায় রিপাবলিকান নীতি-নির্ধারকরা ‘পিএ-১ কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্ট’-কে অভিবাসীদের জন্যে বিভক্ত আসনে পরিণত করে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ড. নীনাকে কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদে ঠেকিয়ে রাখার জন্য নেয়া এ পদক্ষেপে প্রকারান্তরে তার ভাগ্যকেই প্রসন্ন করা হলো। কারণ, ডেমক্র্যাটরা অনেক আগে থেকেই ড. নীনাকে পেনসিলভেনিয়া থেকে সিনেটর করার কথা ভাবছে। লে. গভর্ণর হতে পারলে তাদের সে স্বপ্নপূরণ সহজ হবে।

৩ মার্চ ওয়াশিংটন ডিসিতে ড. নীনা আহমেদের নির্বাচনী সমাবেশ হবে। এ উপলক্ষে বিস্তারিত প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন সমাবেশের অন্যতম হোস্ট ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিফ। এরপর ৩১ মার্চ নিউইয়র্কে এবং মার্চের মাঝামাঝি লস এঞ্জেলেস সিটিতে সমাবেশের কর্মসূচি অপরিবর্তিত থাকবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।