বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে উত্তর আমেরিকা বাংলা সাহিত্য সম্মেলন ২০২১ দুইদিন ব্যাপী ভার্চুয়াল অনুষ্ঠান আগামী ২৭ ও ২৮ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে।

স্বাগতিক সংগঠন হিসেবে এবারের সম্মেলনে রয়েছে বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন অব ফ্লোরিডা।

‘বিশ্বব্যাপী বাংলা সাহিত্যের সেতু বন্ধন’- এই স্লোগানকে ধারণ করে আয়োজক বৃন্দের এই যাত্রা।

সম্মেলনের সভাপতি আতিকুর রহমান আতিক বলেন যে, বিশ্বের সকল প্রান্তে বাংলা ভাষাভাষী সকলেই বাঙালী বাংলা সাহিত্যের ক্ষেত্রে দেশি ও প্রবাসীর মধ্যে কোন বৈষম্য আমরা বিশ্বাস করিনা। তাই আমরা সম্মেলনের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বাংলা সাহিত্যের সেতু বন্ধন সৃষ্টির প্রয়াস চালাচ্ছি।

দুই দিন ব্যাপী চার পর্বে সর্ব মোট প্রায় ১৬ ঘন্টার অনুষ্ঠান বিশ্বব্যাপী প্রচারিত হবে ভার্চুয়ালী।

২৭ মার্চ শনিবার সকাল ১০টায় (ইর্স্টান সময়ানুযায়ী) অর্থাৎ বাংলাদেশে রাত ৯টায়। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক থাকবেন কবি আসাদ চৌধুরী। বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত বরেণ্য ব্যাক্তিবর্গের শুভেচ্ছা বক্তব্য থাকবে। সাহিত্যানুষ্ঠানের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে থাকছে ভাবসঙ্গীত, নাচ, গান ও আবৃত্তি।

প্রথম পর্বে সেমিনার হিসেবে থাকবে ‘প্রবাসে বাংলা সাহিত্যের চর্চা ও প্রসার’, প্রবাসী কবিদের আবৃত্তি : কবিতার হিরণ্ময় প্রহর।

দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে রাত ৮টা (ইস্টার্ণ টাইম), বাংলাদেশ সময় ২৮ মার্চ সকাল ৮টায়। এই পর্বে থাকবে অতিথিদের শুভেচ্ছা বক্তব্য, আলোচনা : পঞ্চ কবি সাহিত্য ও সংস্কৃতি, বাংলাদেশের মূকাভিনয়ে আধুনিক ধারা ও মূকাভিনয় প্রদর্শন, কবিতা আলেখ্য : জীবন বিরহণ এবং নজরুল আধ্যাত্মবাদ।

উত্তর আমেরিকা বাংলা সাহিত্য সম্মেলন ২০২১ এর লাইফ শো যথাসময়ে দেখা যাবে- times24.tv, fm786.com, usanewsonline.com, channel52us.com দেখতে পাবেন ফেসবুক ও ওয়েব সাইডে)।

সম্মেলন এর সদস্য সচিব কাজী মশহুরুল হুদা সংবাদ মাধ্যমকে জানান যে, দেশ ও জাতিকে তুলে ধরার জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অন্যান্য জাতির মত ‘বাংলাদেশ কালচারাল সেন্টার’ প্রতিষ্ঠার ভাষা শিক্ষা দেশকে সমৃদ্ধশালী করতে সহায়ক।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা সম্মেলনের মাধ্যমে সরকারের কাছে আবেদন করেছি বিশ্বব্যাপী বাংলাসেন্টার প্রতিষ্ঠার। বঙ্গবন্ধু বাঙালী জাতীয়তাবাদ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। এই চেতনাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে উত্তর আমেরিকা বাংলা সাহিত্য সম্মেলন।

আগামী ২৮ মার্চ রবিবার সকাল ১০টা (ইস্টার্ণ টাইম), বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে সম্মেলনের তৃতীয় পর্ব। এতে শুরুতে থাকছে ভাবসঙ্গীত, ভাস্বর বন্দোপাধ্যায়ের আবৃত্তি, সদস্য সচিবের বক্তব্য সহ গণ্যমাণ্য ব্যাক্তিবর্গের শুভেচ্ছা বক্তব্য।

আলোচনার প্রথমেই থাকছে নতুন প্রজন্মের অনুষ্ঠান বাংলাদেশের সুবর্ণ জয়ন্তী। কবিতা আবৃত্তি অনুষ্ঠান, নাচ, গান। আলোচনায় আরও থাকছে বিশ্বায়নে বাংলা সাহিত্য ও মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক আলোচনা, প্রকাশকদের আলোচনা, সাহিত্যের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনা ও ললিত কন্ঠ-স্বরশৈলীর বন্ধন (টরেন্ট কানাডা থেকে পরিবেশিত)। দ্বিতীয় দিনের প্রথম পর্বের সমাপ্তি।

পুনরায় শেষ পর্ব ২৮ মার্চ (রবিবার)। শুরু হবে রাত ৮টা (ইস্টার্ণ টাইম)। সঙ্গীত ও অতিথিদের শুভেচ্ছা বক্তব্য দিয়ে শুরু হবে। এ সময় থাকছে কলকাতার আবৃত্তিকার চন্দ্রিমার আবৃত্তি, প্রধান সমন্বয়কারীর বক্তব্য, ইউরোপের কবি এবং শিল্পীদের নিয়ে অনুষ্ঠান, নাচ ও আবৃত্তিকার কাজী মশহুরুল হুদার আবৃত্তি (আবুল চাচার মেজাজ গরম)। থাকছে নাটক ও সাহিত্য নিয়ে আলোচনা, কবিতার কৌশল, আবৃত্তির আসর। প্রদর্শীত হবে- বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব পারফরমিং আর্ট এবং মিডিয়া ডালাস ও কারিগরের গায়েন দলের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এছাড়া বিশেষ আলোচনা মনস্তত্ত্বে রবীন্দ্রনাথ, সাহিত্য সম্মাননা প্রদান পর্ব এবং সব শেষে সভাপতির ধন্যবাদ জ্ঞাপন।

প্রসঙ্গত, সম্মেলনের প্রধান সমন্বয়কারী সেলিম চৌধুরী দেশে ও প্রবাসে বসবাসকারী সকল বাংলা ভাষাভাষীদেরকে ভার্চুয়ালী যুক্ত থেকে অনুষ্ঠান উপভোগ করার আহ্বান জানিয়েছেন।