ইকুয়েডরে কারাগারে পৃথক তিনটি দাঙ্গায় কমপক্ষে ৬২ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কয়েক ডজন।

প্রতিপক্ষ গ্রুপের সঙ্গে দ্বন্দ্ব থেকেই দাঙ্গার ঘটনা ঘটে বলে মঙ্গলবার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। খবর আলজাজিরার।

গায়াকুইল, কুয়েঙ্কা এবং লাতাকুঙ্গা শহরের কারাগারে এই দাঙ্গার ঘটনা ঘটে। গুলি ও ছুরি হামলায় কয়েদিরা নিহত হন বলে জানায় স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে।

ইকুয়েডরের কারা সংস্থার পরিচালক এডমুন্ডো মোনকায়ো বলেন, ‘কারাগারের অপরাধ নেতৃত্ব নিয়ে দুই গ্রুপ সংঘাতে জড়িয়েছিল।’

এখন পর্যন্ত ৬২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে জানান মোনকায়ো।

তিনি বলেন, অতিরিক্ত ৮০০ পুলিশের সহযোগিতায় কর্তৃপক্ষ কারাগারগুলোতে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা ও শৃঙ্খলা ফেরাতে সক্ষম হয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্সকে কারাগারগুলো থেকে বের হতে দেখা যায়।

এদিকে দাঙ্গার খবর ছড়িয়ে পড়তেই কয়েদিদের স্বজনরা কারাগারের সামনে জড়ো হয়েছে কী ঘটেছে জানার জন্য।

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মরেনো টুইটারে বলেছেন, ‘দুর্বৃত্ত গোষ্ঠীগুলো দেশের কয়েকটি কারাগারে একযোগে সহিংসতা চালিয়েছে।’