কাতার প্রবাসী বাংলাদেশিদের দূতাবাসের সেবার মান শতভাগ নিশ্চিত করতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে দেশটিতে নবনিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন।

প্রবাসীদের সমস্যা ও তার সমাধান, কাতারের বাজারে বাংলাদেশের দক্ষ শ্রম শক্তিকে কীভাবে কাজে লাগানো যায়, এসব বিষয়সহ বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে এখন ধারাবাহিকভাবে দূতাবাসে কাউন্সিলররা নিজেদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা উপস্থাপনা করেন নতুন রাষ্ট্রদূতের কাছে।

ধারাবাহিক অংশ হিসেবে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর ড. মুস্তাফিজুর রহমানের উপস্থাপনায় নতুন রাষ্ট্রদূত জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
তাছাড়া চলমান সংকটে বাংলাদেশে আটকাপড়া কাতার প্রবাসীদের কর্মস্থলে ফেরাতে নতুন রাষ্ট্রদূত জসিম উদ্দিন কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং রাষ্ট্রদূতের সাথে কাতার সরকার একাত্মতা পোষণ করেন। যদিও করোনা পরিস্থিতি কারণে কিছুটা শিথিলযোগ্যভাবে কাতার ভ্রমণ করছে প্রবাসীরা।

২০২২ কাতার বিশ্বকাপকে সামনে রেখে বড় প্রকল্প মেট্রোরেল, স্টেডিয়াম, রাস্তাঘাট ও হোটেল-মোটেলসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ প্রায় শেষ হওয়ার পথে। ফলে এখন কীভাবে দক্ষ জনশক্তিকে সম্প্রসারণ করা যায়, এসব বিষয়ে আলাপ-আলোচনা হচ্ছে দূতাবাসে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন দূতাবাসের প্রথম সচিব ও দূতালয় প্রধান মাহবুর রহমান, শ্রম কাউন্সিলর মো. রবিউল ইসলাম, পাসপোর্ট ও ভিসা বিভাগের কাউন্সিলর নাজমুল হাসান, তৃতীয় সচিব ও মিডিয়া উইং মনিরুজ্জামান চৌধুরী।

সেমিনারে শ্রম কাউন্সিলর ড. মুস্তাফিজুর রহমান কাতারে বর্তমান শ্রমবাজারে অবস্থা, আগামী দিনের সম্ভাবনাময় খাতগুলো, যেসব প্রতিষ্ঠানে দক্ষ লোকের চাহিদা, কাতারের নতুন শ্রম আইনে প্রবাসীদের সুযোগ-সুবিধা, আধুনিকায়নে লুসাইল সিটিতে পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে সরকারের বেশকিছু বড় প্রকল্পসহ বিভিন্ন পরিকল্পনায় কীভাবে বাংলাদেশিদের নিয়োজিত করা যায়, এসব বিষয়ে রাষ্ট্রদূতের কাছে কর্মতৎপরতা তুলে ধরেন।